ছবি: সংগৃহীত

হাসপাতালে রিয়াজ

বিনোদন ডেস্ক: হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেন চিত্রনায়ক রিয়াজ। তিনি এখন রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। আজ সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত পৌনে ৮টার মধ্যে উত্তরার হৈচৈ বাড়িতে হঠাৎ জ্ঞান হারান রিয়াজ। তিনি সেখানে ‘কৃষ্ণপক্ষ’ ছবির শুটিং করছিলেন। অচেতন হয়ে পড়লে শুটিং বন্ধ করে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতালে গিয়ে জানা গেছে, ড. প্রফেসর শাহাবুদ্দিনের তত্ত্বাবধানে রিয়াজের চিকিৎসা চলছে। তিনি জানান, জনপ্রিয় এই চিত্রনায়কের হৃৎপিন্ডে চারটি ব্লক ধরা পড়েছে। এর মধ্যে একটি গুরুতর। এ কারণে একটিতে রিং পরানো হয়েছে। তিনি এখন আছেন সিসিইউতে।

সোমবার সকালে বাগেরহাটে পূজা উৎসবে অংশ নিয়েছেন রিয়াজ। সেখান থেকে হেলিকপ্টারে চড়ে তিনি ঢাকায় ফেরেন সন্ধ্যায়। এরপর যোগ দেন ‘কৃষ্ণপক্ষ’র দৃশ্যধারণে। সব ভালোই চলছিলো। হঠাৎ মেঝেতে লুটিয়ে পড়েন রিয়াজ। এদিকে রিয়াজের অসুস্থতার খবর ছড়িয়ে পড়তে ভক্ত, শুভাকাঙ্ক্ষী ও চলচ্চিত্রাঙ্গনে উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়ে। তার অভিনীত ‘কৃষ্ণপক্ষ’ আগামী ১৩ নভেম্বর হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিনে মুক্তি পাওয়ার কথা। দেশের তিন নন্দিত অভিনেত্রী সুচন্দা, ববিতা ও চম্পা সম্পর্কে রিয়াজের চাচাতো বোন। ববিতার হাত ধরে তারই উৎসাহে ১৯৯৫ সালে ‘বাংলার নায়ক’ ছবির মাধ্যমে রূপালি পর্দায় যাত্রা শুরু করেন তিনি। এরপর অনেক ব্যবসাসফল ও দর্শকপ্রিয় ছবিতে তাকে দেখা গেছে।

এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য- প্রাণের চেয়ে প্রিয়, হৃদয়ের আয়না (১৯৯৭), ভালবাসি তোমাকে, পৃথিবী তোমার আমার, বুক ভরা ভালোবাসা, কাজের মেয়ে (১৯৯৮), বিয়ের ফুল, স্বপ্নের পুরুষ (১৯৯৯), এ বাঁধন যাবে না ছিঁড়ে, সাবধান, ভয়ঙ্কর বিষু (২০০০), হৃদয়ের বন্ধন, শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ, মিলন হবে কতোদিনে, প্রেমের তাজমহল (২০০১), নিঃশ্বাসে তুমি বিঃশ্বাসে তুমি, ও প্রিয়া তুমি কোথায় (২০০২), মাটির ফুল, ভালবাসা কারে কয়, মনের মাঝে তুমি, স্বপ্নের বাসর, জামাই শ্বশুর (২০০৩), রং নাম্বার, ছোট্ট একটু ভালবাসা, টক ঝাল মিষ্টি (২০০৪), মোল্লাবাড়ির বউ (২০০৫), হৃদয়ের কথা, না বলো না, বকুল ফুলের মালা (২০০৬), আকাশ ছোঁয়া ভালোবাসা, তোমাকেই খুঁজছি, মেঘের কোলে রোদ, কি যাদু করিলা, চন্দ্রগ্রহণ (২০০৮), এবাদত, চাঁদের মতো বউ, মন বসে না পড়ার টেবিলে (২০০৯), বাজাও বিয়ের বাজনা (২০১০), কুসুম কুসুম প্রেম (২০১১), লোভে পাপে পাপে মৃত্যু (২০১৪) ইত্যাদি।

জনপ্রিয় কিছু গল্প-উপন্যাসের ভিত্তিতে নির্মিত চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন রিয়াজ। এগুলো হলো দুই দুয়ারী (২০০০), সুন্দরী বধূ (২০০২), মেঘের পরে মেঘ, শ্যামল ছায়া, শাস্তি (২০০৪), হাজার বছর ধরে (২০০৫), খেলাঘর, বিদ্রোহী পদ্মা (২০০৬), দারুচিনি দ্বীপ, একজন সঙ্গে ছিল (২০০৭) এবং মধুমতি (২০১১)।

চলচ্চিত্রে অনবদ্য অভিনয়ের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে সেরা অভিনেতা হয়েছেন রিয়াজ। ছবিগুলো হলো- দুই দুয়ারী (২০০০), দারুচিনি দ্বীপ (২০০৭) এবং কি যাদু করিলা (২০০৮)।

অভিনয়ের পাশাপাশি চলচ্চিত্র প্রযোজকও হয়েছেন রিয়াজ। অভিনয় করেছেন নাটকেও। চলচ্চিত্রে অভিনয় কমিয়ে গত কয়েক বছর টিভি নাটকে মনোযোগী হন রিয়াজ। এ ছাড়া চ্যানেল আইয়ের ‘হ্যান্ডসাম দি আলটিমেট ম্যান’ প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় মৌসুমে প্রধান বিচারকের দায়িত্বে ছিলেন। উপস্থাপনাও করেছেন। সম্প্রতি ‘সুইটহার্ট’ ছবির মাধ্যমে দীর্ঘদিন পর চলচ্চিত্রে ফেরেন রিয়াজ। এরপর হাতে নিয়েছেন হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাস অবলম্বনে ‘কৃষ্ণপক্ষ’।
ব্যক্তিজীবনে এক কন্যাসন্তানের বাবা রিয়াজ। তার স্ত্রী মাশফিকা খান তিনা ছিলেন বিনোদন বিচিত্রার ফটো সুন্দরী বিজয়ী। তিনি একসময় অভিনয় করতেন, নাচতেন। ২০০৭ সালের ১৮ ডিসেম্বর তারা বিয়ের বন্ধনে জড়ান। চলতি বছরের ১ জুন তাদের মেয়ে পৃথিবীর আলো দেখেছে।

Print
757 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close