”দাড়ি রাখা কি অপরাধ” হরিদাসপুরে বাংলাদেশি বৈধ যাত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: আসাদুর রহমান (৩২) নামে এক বাংলাদেশি নাগরিক ভারত থেকে ফেরার পথে হরিদাসপুরে সে দেশের ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে নির্যাতিত হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন। যশোরের কেশবপুর উপজেলার ফতেপুর গ্রামের আজিত মোল্লার ছেলে আসাদুরের অভিযোগ, মুখে দাড়ি রেখে ভারত ভ্রমণের ‘অপরাধে’ তাকে নাজেহাল করা হয়। এমনকী, তার দাড়ি ধরে টানাটানিও করা হয়। শুক্রবার দুপুরে বাংলাদেশ ভূখণ্ডে পৌঁছে স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে তিনি তার করুণ অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন। এ সময় আসাদুর রহমান কান্নায় ভেঙে পড়েন। তবে তিনি বাংলাদেশের ইমিগ্রেশন কর্তৃপ বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ঘটনাটি জানাননি।

আসাদুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, গত ২৭ সেপ্টেম্বর তিনি বৈধভাবে বেনাপোল ইমিগ্রেশন দিয়ে ভারতে যান। কলকাতা, দিল্লি, আজমিরসহ ধর্মীয় তীর্থস্থান ভ্রমণ শেষে শুক্রবার বেলা ১২টায় তিনি হরিদাসপুর ইমিগ্রেশন চেকপোস্টে আসেন। ইমিগ্রেশনের বহির্গমন বিভাগে পাসপোর্টে সিল লাগানোর জন্য তিনি যখন লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন, তখন সাদা পোশাকে ভারতীয় ইমিগ্রেশন পুলিশের কর্মকর্তা পরিচয়ে একব্যক্তি তাকে পাশের কাঁচঘেরা কে নিয়ে যান। ওই ব্যক্তি তাকে বিভিন্ন প্রশ্ন করতে থাকেন। একপর্যায়ে তিনিসহ ইমিগ্রেশন পুলিশের বেশ কয়েক সদস্য আসাদুরকে চড়-থাপ্পড় মারেন। তারা আসাদুরের দাড়ি ধরেও টানাটানি করেন। তিনি কেন ছয় মাসে তিনবার ভারতে এসেছেন তাও জানতে চান ইমিগ্রেশন পুলিশ সদস্যরা। ফের ভারতে এলে জেলে পাঠানোর ভয়ও দেখানো হয় তাকে।
আসাদুর রহমান বলেন, ‘আমি বৈধ পাসপোর্ট ও ভিসা নিয়ে ভারত ভ্রমণে গিয়েছি। আমাকে নাজেহাল করার কোনো অধিকার না থাকলেও ভারতীয় ইমিগ্রেশন পুলিশ এই জঘন্য কাজ করেছে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আসাদুর জানান, বিষয়টি তিনি বাংলাদেশ পুলিশকে জানাতে চান না। তার মতে, এতে ঝামেলা বাড়বে বই কমবে না। জানতে চাইলে বেনাপোল ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের কাছে এই বিষয়ে কেউ কোনো অভিযোগ করেননি। অভিযোগ করলে আমরা অবশ্যই বিষয়টি দেখতাম। অভিযোগ সত্য হলে প্রতিকারের ব্যবস্থাও করতাম।’

Print
840 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close