জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ ও সালাউদ্দিন কাদের সাকা চৌধুরীর

মৃত্যুর প্রহর গুনছেন মুজাহিদ-সাকা চৌধুরী

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদন্ড-প্রাপ্ত সালাউদ্দিন কাদের সাকা চৌধুরী ও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের মামলায় আসামি পরে দু’টি রিভিউ আবেদন আপিল বিভাগে নিষ্পত্তির অপোয় রয়েছে। এছাড়া গত ১৯ অক্টোবর সাকা চৌধুরীর পে পাঁচ পাকিস্তানিসহ আটজনের সাফাই স্যাগ্রহণ চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। এ বিষয়েও আপিল বিভাগে শুনানি হবে। তবে সংবিধান অনুযায়ী রিভিউতে বিদেশি সাীর স্যা দেওয়ার সুযোগ নেই। আগামী ২ নভেম্বর দুই শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী রিভিউ আবেদনের শুনানির দিন ধার্য রয়েছে।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর এ রায় প্রকাশের পরদিন এ দু’জনকে মৃত্যু পরোয়ানা পড়ে শুনিয়েছেন কারা কর্তৃপ। এরপর থেকেই তাদের মৃত্যুর প্রহর গোনা শুরু হয়েছে। এখন মৃত্যুদন্ড কার্যকর করতে আইনগতভাবে দুটি ধাপ বাকি আছে। প্রথমত, রিভিউ নিষ্পত্তি ও রাষ্ট্রপতির কাছে মা চাওয়ার প্রসঙ্গ। রিভিউ নিষ্পত্তির আগে দন্ড কার্যকর করা যাবে না। এ আবেদন খারিজ হলে সেই রায়ের অনুলিপি কারাগারে পাঠানো হবে। এরপর সাকা-মুজাহিদ রাষ্ট্রপতির কাছে মা চেয়ে আবেদন করার সুযোগ পাবেন। রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করলে এবং সে আবেদন খারিজ হলে ফাঁসি কার্যকরে কোনো বাধা থাকবে না।

সাকা চৌধুরীর প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, প্রয়োজনে আপিল বিভাগ সংবিধানের ১০৪ অনুচ্ছেদের মতাবলে আমাদের আট সাীকে সমন দিয়ে এ ব্যাপারে (যুদ্ধের সময় সাকা চৌধুরী পাকিস্তানে ছিলেন কি-না) নিশ্চিত হতে পারেন। ন্যায়বিচারের স্বার্থে আপিল বিভাগ তার অন্তর্নিহিত মতা প্রয়োগ করে যে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। তবে আইনজ্ঞরা বলছেন, মামলার এ পর্যায়ে এসে এ ধরনের আবেদন নজিরবিহীন ও প্রহসন। আপিল বিভাগ অন্তর্নিহিত মতা যথেচ্ছাচারভাবেও প্রয়োগ করেন না।

সাকা চৌধুরী ও মুজাহিদের ফাঁসির দন্ড বহাল রেখে আপিল বিভাগের দেওয়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশিত হয় গত ৩০ সেপ্টেম্বর। প্রধান বিচারপতিসহ সংশ্লিষ্ট সব বিচারপতির স্বারের পর ওই দিন মুজাহিদ ও সাকা চৌধুরীর আপিলের রায় প্রকাশ করেন আদালত। মুজাহিদের মামলার রায় ১৯১ ও সাকা চৌধুরীর মামলার রায় ২১৭ পৃষ্ঠার। ইতোমধ্যে মুজাহিদকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে মৃত্যু পরোয়ানা পড়ে শোনানোর পর সাকা চৌধুরীকেও পরোয়ানা পড়ে শোনানো হয়েছে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে। ১৪ অক্টোবর তারা আপিল বিভাগের রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে আবেদন করেন। ২ নভেম্বর আপিল বিভাগে সে বিষয়ে শুনানির দিন ধার্য রয়েছে।
এ ছাড়া রিভিউ শুনানির অপোয় থাকা অবস্থায় সাকা চৌধুরী আটজনের স্যাগ্রহণ চেয়ে আবেদন করেছেন। তবে আইনজীবীরা বলছেন, এ ধরনের আবেদন গ্রহণের সুযোগ নেই।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে সাকা চৌধুরীর মামলায় অন্যতম প্রসিকিউটর ছিলেন তুরিন আফরোজ। তিনি বলেন, প্রথমত, সাকা চৌধুরী এ মামলায় নিজেকে নির্দোষ প্রমাণের জন্য আত্মপ সমর্থন করতে চার বছরেরও বেশি সময় পেয়েছেন। প্রসিকিউশনের ডকুমেন্ট চ্যালেঞ্জ করতে তিনি সাফাই সাক্ষী ও দালিলিক সাক্ষী উপস্থাপন করেছেন। কিন্তু তিনি প্রসিকিউশনের ডকুমেন্ট ও অভিযোগ ভুল প্রমাণ করতে পারেননি। মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের যে প্রতিষ্ঠানে তিনি পড়াশোনা করেছেন বলে দাবি করছেন, সেই প্রতিষ্ঠানের রেজিস্ট্রার খাতা তিনি স্যা হিসেবে জমা দেননি। ওই প্রতিষ্ঠানের রেজিস্ট্রারকেও সাক্ষ্য করেননি। এখন মামলার আপিল শেষে রিভিউ শুনানির অপোয় থাকা অবস্থায় নতুন করে স্যাগ্রহণের আবেদন প্রহসন ছাড়া আর কিছুই নয়।

তুরিন বলেন, এছাড়া স্যাগ্রহণের ব্যাপারে আদালতের অন্তর্নিহিত মতার ব্যবহারের কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু আদালত এ মতা যথেচ্ছাচারভাবে প্রয়োগ করেন না। আদালত এ ক্ষেত্রে জুডিশিয়াল মাইন্ড প্রয়োগ করেন। তারপরও বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন। আদালত এ বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত দেন আমরা তা দেখার অপোয় আছি বলেও মন্তব্য করেন ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক অ্যাডভোকেট এ এম আমিনউদ্দিন বলেন, সংবিধানে রিভিউয়ের বিধান রয়েছে। কোনো মামলায় দৃশ্যমান ভুল বা অসংগতি থাকলে রিভিউ হবে। আসামিপ মামলায় আত্মপ সমর্থনে অনেক সময় পেয়েছেন। আমার জানা মতে, বিচারিক আদালতে তারা এ ধরনের আবেদন করেননি। কিন্তু সাকা চৌধুরীর মামলায় রিভিউ আবেদন বিচারাধীন থাকা অবস্থায় আসামিপ নতুন করে স্যাগ্রহণের আবেদন করেছেন। কিন্তু বাংলাদেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী আপিল বিভাগের স্যাগ্রহণের বিধান নেই। সংবিধানের ১০৪ অনুচ্ছেদের মতাবলে এ মুহূর্তে এ ধরনের আবেদন আদালতের গ্রহণের সুযোগ নেই। এটা আমার ব্যক্তিগত মত। এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আদালতই দেবেন।

সাবেক পররাষ্ট্র সচিব ওয়ালিউর রহমান বলেন, এটা সাধারণ কোনো অপরাধের বিচার নয়, এটা আন্তর্জাতিক অপরাধের বিচার। এ অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন সাকা চৌধুরী ও মুজাহিদ। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল তাদের মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন। সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ এ সাজা বহাল রেখেছেন। সবকিছু বিচার বিশ্লেষণ করে সুচিন্তিতভাবেই আপিল বিভাগ রায় দিয়েছেন। তাই আমি মনে করি না যে, রিভিউ আবেদনে সাজার কোনো পরিবর্তন হবে। আমাদের প্রত্যাশা থাকবে আপিল বিভাগ তার রায় বহাল রাখুন।

ওয়ালিউর রহমান বলেন, পৃথিবীর যেসব জায়গায় আন্তর্জাতিক অপরাধের বিচার হয়েছে তার কোথাও রিভিউ করার সুযোগ নেই। আমাদের আইনেও ছিল না। তবে আপিল বিভাগ একটি রায়ে রিভিউ করার সুযোগ দিয়েছেন। সাকার পে আটজনের স্যাগ্রহণ চেয়ে আসামিপরে আবেদনের পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম এ বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, রিভিউ আবেদন করার পর এ পর্যায়ে এসে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পে সাফাই সাক্ষীর সসাক্ষ্য গ্রহণ করা হলে অরাজকতা তৈরি হতে পারে। প্রত্যেক আসামি একের পর এক আবেদন জানাবেন।

তিনি বলেন, রিভিউ আবেদন করার পর এ পর্যায়ে এসে সাক্ষী আনা এবং সাক্ষী মানা কোনোটিরই নজির নেই। সাকার পক্ষ থেকে এর আগেও একই বিষয় নিয়ে সাফাই সাক্ষী এবং ডকুমেন্ট জমা দেওয়া হয়েছে। তা নিয়ে পর্যালোচনা করে দু’টি আদালতের বিষয়টিতে একই সিদ্ধান্ত দেওয়ার পরেও এমন দাবি করাটা অযৌক্তিক।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ফৌজদারি মামলার ক্ষেত্রে রিভিউয়ের সুযোগ খুবই কম। সাধারণত আদালতের কোনো ভুল পরিলতি হলে পুনর্বিবেচনার সুযোগ থাকে। এ ছাড়াও এ মামলার বিচারের সময় সাকা চৌধুরী নানা ধরনের তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেছেন। আর সেগুলো যাচাই-বাছাই করে ট্রাইব্যুনাল এবং উচ্চ আদালত বিচার করেছেন। এখন আবার একই কথার পে কয়েকজনকে সাক্ষী মেনে সমন চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। এটা আদালতের বিচার্য। বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করতে ১৬ জুন নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ। ২৯ জুলাই বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদের সাকা চৌধুরীর ফাঁসিও বহাল রাখেন সর্বোচ্চ আদালত। এর আগে ২০১৩ সালের জুলাই এবং অক্টোবরে মুজাহিদ ও সাকা চৌধুরীকে মৃত্যুদন্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার মামলায় ২০১০ সালে মুজাহিদ গ্রেফতার হন। আর গাড়ি পোড়ানোর মামলায় একই বছরের ডিসেম্বরে গ্রেফতার হন সাকা চৌধুরী। পরে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়।

এ মামলায় বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের ১৫ দিনের মধ্যেই নিয়ম অনুযায়ী আপিল বিভাগে রিভিউ আবেদন করেছে আসামিপ। এর মধ্য দিয়ে মূলত স্থগিত রয়েছে ফাঁসির দ্রুত কার্যকরের বিষয়টি। অর্থাৎ পুনর্বিচেনার আবেদনের নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ফাঁসি কার্যকর করা যাবে না। মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় আদালতের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে রিভিউয়ের শুনানি ও নিষ্পত্তি হবে আপিল বিভাগে। তবে রিভিউ আবেদন কখনই আপিলের সমতুল্য নয়। রিভিউ আবেদন নাকচ হলে সাকা চৌধুরী ও মুজাহিদ রাষ্ট্রপতির কাছে মা চাইবেন কি-না সে বিষয়টি এখনই নিশ্চিত করেনি সংশ্লিষ্ট সূত্র।

Print
763 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close