যশোর ডিএফএ কর্মকর্তা পলাশ এর বিরুদ্ধে চাকরি দেবার নামে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: যশোর অভয়নগর উপজেলার আমডাঙ্গা গ্রামের ফুটবল খেলোয়াড় আলামিন নামে এক যুবককে সেনাবাহিনীতে চাকুরি পাইয়ে দেওয়ার নাম করে যশোর উপশহরের সাব্বির আহম্মেদ পলাশ নামে এক প্রতারক ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ধারের টাকা ফেরত দিতে না পেরে প্রতারনার শিকার যুবক আলআমিন আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে ।

প্রতারনার শিকার আল-আমিনের পরিবার গ্রামের বিভিন্ন মানুষের কাছ খেকে ধার দেনা করে সেনাবাহিনীতে চাকুরির জন্য । টাকা দিয়েও আজ অবদি চাকুরি হয়নি তার । বর্তমানে পলাশের কাছে তার টাকা ফেরত না পেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে আলামিন।
ভুক্তভোগী আলআমীন’র বাবা আব্দুর রাজ্জাক (০১৮৫৬৪৮৬৫৩৩) এর সাথে কথা বলে জানা যায়, যশোরের প্রাক্তন ফুটবল খেলোয়াড় ও বর্তমানে যশোর জেলা ফুটবল এ্যাসোসিয়েশনের সদস্য যশোর উপশহরের সাব্বির আহম্মেদ পলাশ অভায়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া আমডাঙ্গা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে আলামিনকে সেনাবাহিনীতে চাকুরি পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে ১ লক্ষ টাকা দাবি করে। এর মধ্যে ৫০ হাজার টাকা চাকুরির আগে ও ৫০ হাজার টাকা চাকুরির পরে দিতে হবে বলে জানান।

সরকারী চাকুরির কথা চিন্তা করে আলামিনের পিতা আব্দুর রাজ্জাক ধার দেনা করে ও সুদে টাকা নিয়ে প্রায় ১ বছর আগে সাব্বির আহম্মেদ পলাশের কাছে নওয়াপাড়া খেলোয়ার কল্যান সমিতির গোলকিপার রফিক ও পলাশের ছোট ভাই দবীর আহম্মেদ কে সামনে রেখে পলাশকে নগদ ৩০ হাজার টাকা দেন। পরবর্তীতে বিকাশের মাধ্যামে আরও ২০ হাজার টাকা দেন। গোলকিপার রফিক (০১৯২১১৫৯৪৩৪) এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এর সত্যতা স্বীকার করেন । টাকা দেওয়ার পর থেকে অদ্যবধি সাব্বির আহম্মেদ পলাশ চাকুরি পাইয়ে দেওয়ার নামে আলামিনকে বিভিন্নভাবে ঘুরাতে থাকে। একবছর পার হয়ে গেলেও আলামিনের চাকরি না হওয়ায় তার বাবার ধার দেনা করে আনা টাকার জন্য পওনাদাররা চাপ দিতে শুরু করেছে।

এই ধার নেওয়া ও সুদে টাকা নেওয়াকে কেন্দ্র করে আলামিন এর বাবার সাথে পাওনাদারদের কয়েক দফা বাকবিতন্ডা হয়েছে এবং তারা আলামিন ও তার বাবাকে বিভিন্নভাবে অপমানিত করে চলেছে। সাব্বির আহম্মেদ পলাশের মাধ্যমে চাকুরী ও টাকা ফেরত না পাওয়াকে কেন্দ্র করে এবং পাওনাদারদের টাকা সময়মত ফেরত দিতে না পারায় বিভিন্ন অপমানের একপর্যায়ে আলামিন নিজ বাড়িতে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। আত্মহত্যার চেষ্টার বিষয়টি লোকমুখে ছড়িয়ে পড়লেই বের হয়ে আসে আসল ঘটনা। পলাশের এই প্রতারণা, টাকা ফেরত না দেওয়া, এক বছর ধরে আলামীন ও তার পিতাকে চাকরি আজ হবে কাল হবে বলে ঘুরাতে থাকায় তারা পাওনাদারদের টাকা পরিশোধ করতে পারছে না। আলামিনের পিতা আব্দুর রাজ্জাক জানিয়েছেন, তার ছেলে আলামিনকে সেনাবাহিনীতে চাকুরি দেওয়ার নামে সাব্বির আহম্মেদ পলাশ প্রায় ১ বছর আগে দুই কিস্তিতে মোট ৫০ হাজার টাকা নিয়েছেন। কিন্তু চাকুরি আজও হয়নি । এখন চাকুরীও দিচ্ছেনা আবার টাকাও ফেরত দিচ্ছেনা। সংসার চালাতে আমাকে চরম হিমসিম খেতে হচ্ছে। আমার ছেলেটা বারবার আত্মহত্যা করার চেষ্টা করছে ।

সাব্বির আহম্মেদ পলাশ এর বিরুদ্ধে জেলা ফুটবল এ্যাসোসিয়েশনের নাম ভাঙিয়ে সেনাবাহিনীসহ বিভিন্ন জায়গায় চাকরি দেবার কথা বলে অর্থ আত্মসাতের আরো অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব বিষয়ে তার মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায় । এঘটনায় ভুক্তভোগী পরিবাররা এই প্রতারকের বিরুদ্ধে প্রশাসন ও জেলা ফুটবল এ্যাসোসিয়েশনের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

Print
1056 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close