প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

নদী-জলাশয় সংরক্ষণের তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: মুন্সীগঞ্জে নদীর পানি ব্যবহার উপযোগী করার একটি শোধনাগারের ভিত্তি স্থাপন অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান। শেখ হাসিনা বলেন, “ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তর নেমে যাচ্ছে। পানির স্তর যত নেমে যাবে, ভূমিকম্পের সম্ভাবনাও তত বাড়বে।”

এ সময় বাংলাদেশ ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকার মধ্যে রয়েছে বলেও মনে করিয়ে দেন তিনি। ভূ-উপরিস্থ পানি ব্যবহারের তাগিদ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সেচের পানি জন্য দীঘি, পুকুর, জলাশয় ও খাল খননের ব্যাপক কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে। এতে করে, বৃষ্টির পানি ধরে রাখার পাশাপাশি ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর চাপ কমে যাবে।”

‘পদ্মা (জশলদিয়া) পানি শোধনাগার’ প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছে তিন হাজার ৫০৮ কোটি টাকা।
এতে বাংলাদেশ সরকার এক হাজার ৭৩ কোটি টাকা, ঢাকা ওয়াসা ২২ কোটি টাকা এবং চীনের এক্সিম ব্যাংক ঋণ সহায়তা হিসাবে দুই হাজার ৪১৩ কোটি টাকা দেবে। বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রী ঢাকার একটি পাঁচতারা হোটেল থেকে মুন্সীগঞ্জে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ‘পদ্মা (যশলদিয়া-পানি শোধনাগার নির্মাণ (ফেজ-১০)’ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর উন্মোচন করেন।

চায়না সিএএমসি ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিডেট এই শোধনাগারটি নির্মাণ করবে। পানি, বিদ্যুৎ, গ্যাস, পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থাসহ অত্যাবশ্যকীয় নাগরিক সুবিধা উন্নয়নে সরকার কার্যকর পদপে নিয়েছি জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, “পানি সমস্যা সব সময়ই ছিল। আমরা এই সমস্যা সমাধানে যথাযোগ্য পদপে নিয়েছি।”
তিনি জানান, ভবিষ্যৎ চাহিদার কথা মাথায় রেখে সরকার মেঘনার পানি ব্যবহার করে ধলপুর এলাকায় সায়েদাবাদ পানি শোধনাগার ফেজ-৩ এবং নারায়ণগঞ্জ জেলার চর গন্ধবপুর এলাকায় আরও একটি পানি সরবরাহ প্রকল্প নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার সচিব আবদুল মালেক, চীনের সংসদ সদস্য ও চায়না সিএএমসি ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেডের প্রেসিডেন্ট লু ইয়ান, বাংলাদেশে চীনের রাষ্ট্রদূত মা মিংকিয়াং এবং ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক টাসকিন এ খান। পরে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুন্সীগঞ্জের সাংসদদের সঙ্গেও কথা বলেন।

Print
809 মোট পাঠক সংখ্যা 3 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close