কোপানোর পর দরজা বাইরে থেকে লক করে যায়

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: রাজধানীতে একই দিনে ব্লগার ও প্রকাশকসহ চারজনকে এলোপাতাড়ি কোপায় দুর্বৃত্তরা। এদের মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়। অন্যরা চিকিৎসাধীন থাকলেও এদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানান চিকিৎসক। হামলাকারীরা এলোপাতাড়ি কুপিয়ে রক্তাক্ত করে যাওয়ার সময় বাইরে থেকে দরজা লক করে যায়। যাতে কেউ তাদের বাঁচাতে সহজেই এগিয়ে আসতে না পারে। হামলার পর দরজা লক রাখার বিষয়গুলো প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

রাজধানী লালমাটিয়ার সি ব্লকের ৮/১৩ নম্বর পাঁচতলা ভবনের চারতলায় আহমেদুর রশিদ টুটুলের (৪০) শুদ্ধস্বর প্রকাশনীর কার্যালয়। শনিবার তার সঙ্গে দেখা করতেন আসেন তারেক রহিম (৪৫) ও সুদীপ কুমার বর্মন ওরফে রনদীপ বসু (৫২)। এদিন দুপুর আড়াইটার দিকে বই কেনার নাম করে প্রথমে একজন তার কার্যালয়ে প্রবেশ করে, এরপর আরেকজন, তারপর আরো একজন প্রবেশ করে তাদের এলোপাতাড়ি কোপায় ও তারেকের পেটে গুলি করে। যাওয়ার সময় বাইরে থেকে দরজায় তালা মেরে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করে।

টুটুলের প্রকাশনা থেকে ব্লগার অভিজিৎ রায়ের বই প্রকাশিত হতো। টুটুলও মাঝে মধ্যে ব্লগে লেখালেখি করতেন। অভিজিৎকে হত্যার পর তাকেও হুমকি দেওয়া হলে তিনি এ বিষয়ে মোহাম্মদপুর থানায় জিডি করেন। তবে জিডির বিষয়ে মোহাম্মদপুর থানায় যোগাযোগ করা হলে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জামাল উদ্দিন মীর বলেন, কোন মাসে টুটুল জিডি করেছিলেন, তা আমার জানা নেই। এ ছাড়া ওই সময় আমি কেরানীগঞ্জ থানায় কর্মরত ছিলাম। তবে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আর টুটুল জিডির পর কোনোদিন নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কার কথা পুলিশকে জানাননি।

এদিকে রাজধানীর শাহবাগে আজিজ সুপার মার্কেটে জাগৃতি প্রকাশনীর কর্ণধার ফয়সাল আরেফিন দীপনের ওপরও হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। তবে এ ঘটনায় দীপন মারা যান। শনিবার সন্ধ্যায় তাকে গলা কেটে ফেলে রাখার খবর পাওয়া যায়। লালমাটিয়া ও শাহবাগের ঘটনা কাছাকাছি সময় ঘটেছে বলে সংশ্লিষ্টদের ধারণা। এ ছাড়া লালমাটিয়ার মতো শাহবাগের ঘটনায় বাইরে থেকে দরজা লক করে রাখে দুর্বৃত্তরা।

জাগৃতি প্রকাশনীর ম্যানেজার আলাউদ্দিন জানান, দুপুর দেড়টার দিকে তার সঙ্গে দীপনের শেষ কথা হয়। এরপর তিনি নিচে শোরুমে থাকেন ও দীপন তৃতীয় তলায় অফিসে চলে যান। পরে বিকেলের দিকে লালবাগে প্রকাশকদের ওপর হামলার খবর পেয়ে পরিবারের মতো তিনিও দীপনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে ব্যর্থ হন। দীপনকে বারবার ফোন করা হলেও সাড়া না পাওয়ায় তিনি ওপরে এসে দরজা লক দেখতে পান। পরে ভেতরে ঢুকে গলাকাটা অবস্থায় দীপনকে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দিলে সন্ধ্যা ৭টার দিকে লাশটি উদ্ধার করে ঢামেকে নিয়ে যান।

এ ঘটনার পর ওই মার্কেটের সাতটি পয়েন্টের সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া করে মার্কেট কর্তৃপক্ষ। এ দুটি ঘটনার পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন টিম দুটি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ও তদন্ত টিমগুলো বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করে।

ঢামেক হাসপাতালে আহত ও নিহতদের দেখতে এসে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস) শেখ মারুফ হাসান জানান, লালমাটিয়ার ঘটনায় দুর্বৃত্তরা বই কেনার নাম করে একে একে তিনজন কক্ষে প্রবেশ করে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে তাদের জখম করে। এ বিষয়গুলো তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তের মাধ্যমে জড়িতদের খুঁজে বের করা হবে। এ ঘটনার পর ডিএমপি কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া ঢামেক হাসপাতালে এসে আহত-নিহতদের দেখে যান।

Print
1036 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close