তদন্তের আগেই দোষারোপ বিপদজনক

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: দেশে সংঘটিত কয়েকটি সিরিজ হত্যাকাণ্ডের পর জান-মালের নিরাপত্তা নিয়ে চরম উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে দেশের মানুষ। রাজধানীর গুলশানে ইতালি নাগরিক তাবেলা সিজার হত্যার রেশ কাটতে না কাটতেই রংপুরে জাপানি নাগরিক হোসি কোনিও কে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। দুই বিদেশি নাগরিক হত্যার পর একদিকে নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন বাংলাদেশে অবস্থানরত বিদেশি নাগরিক ও কূটনীতিকরা, অপরদিকে এ নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গন। রাজনীতিবিদদের মধ্যে শুরু হয় কাদা ছোড়াছুড়ি।

প্রতিটি ঘটনার পরপরই সরকারের মন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন দলের নেতারা হত্যাকাণ্ডের জন্য বিএনপি-জামায়াতকে দোষারোপ করে বক্তব্য দিয়ে আসছেন। এমনকি ইতালি নাগরিক তাবেলা সিজার হত্যাকাণ্ডের নির্দেশদাতা হিসেবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিএনপির এক নেতার নামও বলেছেন।

রাজনীতির উত্তপ্ত মাঠ খানিকটা প্রশমিত হওয়ার আগেই আবার পুরান ঢাকায় আশুরার তাজিয়া মিছিলে বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এ পর্যন্ত দু’জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনার পর আবারো নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন বিদেশি নাগরিক ও কূটনীতিরা।

আর রীতি অনুযায়ী আগের মতোই ঘটনা তদন্তের পূর্বেই সরকারের মন্ত্রী ও সরকার দলীয় নেতারা ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে বললেন, এটা বিএনপি-জামায়াতের কাজ। দেশকে অস্থিতিশীল করতে বিএনপি-জামায়াত এই নাশকতা করছে।

এসব হত্যাকাণ্ড নিয়ে যখন দেশ-বিদেশে চলছে আলোচনা-সমালোচনা, ঠিক তখনই আবার শনিবার দুপুরে রাজধানীর লালমাটিয়ায় শুদ্ধস্বর প্রকাশনীর প্রকাশকসহ তিনজনকে দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে ও গুলি করে গুরুতর আহত করে। ঘটনার ৩ ঘণ্টার ব্যবধানে ঢাকার আজিজ সুপার মার্কেটে জাগৃতি প্রকাশনীর কর্ণধার আরেফিন দীপনকে গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

এ দুই ঘটনার তদন্ত শুরুর প্রক্রিয়ার আগেই আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বললেন, এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতরা বিএনপি-জামায়াতের খণ্ডিত অংশ। আর আজ রোববার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বললেন, যারাই এটা করুক না কেন তারা জামায়াত-শিবিরের লোক।

এদিকে সরকারের এসব অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে বিএনপি-জামায়াতের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সরকার এসব ঘটনার মূলহোতাদের আড়াল করতেই প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে অন্যদের ওপর দোষ চাপাচ্ছে।

জনগণের জান-মালের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদেরকে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ দমনে ব্যবহারের কারণেই দেশে একের পর এক অপরাধের ঘটনা ঘটছে বলেও বিএনপি-জামায়াতের অভিযোগ।

সরকার দেশের মানুষের জান-মালের নিরাপত্তা দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে বলে শনিবার এক বিবৃতিতে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

শনিবার জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানও এক বিবৃতিতে বলেছেন, সরকার দুর্বৃত্তদের লালন করে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করার কারণেই একের পর এক এধরণের অঘটন ঘটছে।

অপরদিকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনাগুলো তদন্তের আগেই সরকারের পক্ষ থেকে বিরোধীদলের ওপর দোষ চাপানোর কারণে বিশিষ্টজনসহ সচেতন মানুষের মনে নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে সন্দেহ সংশয় দেখা দিয়েছে।

এমনকি তদন্তের আগেই সরকারের মন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন দলীয় নেতাদের আগাম দোষারোপ রাষ্ট্রের জন্য বিপদজনক বলেও মনে করছেন রাজনীতি বিশ্লেষকরা। সরকারের মন্ত্রীদের আগাম দোষারোপ তদন্তে প্রভাব পড়তে পারে বলেও মনে করছেন তারা।

ঘটনা তদন্তের আগেই বিরোধীদলের ওপর দোষ চাপানোর বিষয়ে জানতে চাইলে বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী ও রাজনীতি বিশ্লেষক ড. আকবর আলী খান শীর্ষ নিউজকে বলেন, এটা মোটেও ঠিক না। এটা খুবই খারাপ।

এ বিষয়ে কথা বললে বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট আমানুল্লাহ কবির বলেন, কোনো হত্যাকাণ্ডের আগেই কাউকে দোষারোপ করা উচিত না। এটা তদন্তে প্রভাব পড়তে পারে। আগাম দোষারোপের কারণে প্রকৃত অপরাধীরা পার পেয়ে যাবে। আসল হোতারা যদি ধরা না পড়ে তাহলে তারা একের পর এক ঘটনা ঘটিয়েই যাবে। এসব ঘটনা পরে রাষ্ট্রের জন্য বিপদজনক হয়ে দাঁড়াবে।

এ বিষয়ে রাজনীতি বিশ্লেষক ও সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ঘটনা তদন্তের আগে কারো ওপর দোষ চাপানো এটা সম্পূর্ণ আইনের শাসনের পরিপন্থী। এটা গণতন্ত্র এবং রাষ্ট্রের জন্যও মারাত্মক ক্ষতিকর।

আলোচিত এসব হত্যাকাণ্ড ও সরকারের মন্ত্রীদের আগাম মন্তব্যের বিষয়ে বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট সাদেক খান শীর্ষ নিউজকে বলেন, ঘটনা তদন্তের আগেই মূল ধারার রাজনৈতিক দলের ওপর দোষ চাপানোর কারণে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে দেশের ভাবমর্যাদা নষ্ট হচ্ছে। তিনি বলেন, সরকার কারো ওপর দোষ চাপালেই যে বিদেশিরা সেটা সহজে বিশ্বাস করবে সেটাও ঠিক না। এজন্য সরকারের উচিত হবে, আগাম দোষারোপ বাদ দিয়ে প্রত্যেকটি ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে তাদেরকে খোঁজে বের করা।

অন্যথায় অপরাধীরা কিছু দিন পর পরই এধরণের ঘটনা ঘটাবে। যা দেশের মানুষের নিরাপত্তার জন্য যেমন হুমকি হবে, তেমিন দেশের জন্যও ক্ষতিকর হবে।

Print
741 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close