রাজবাড়ীতে সেনাবাহিনীর মহড়া পর্যবেক্ষণে রাষ্ট্রপতি

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলায় প্রতিষ্ঠিতব্য ‘রাজবাড়ী সেনানিবাস’ এ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৫৫ পদাতিক ডিভিশন আয়োজিত শীতকালীন প্রশিক্ষণ মহড়া পর্যবেক্ষণ করছেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও সশস্ত্র বাহিনীর সর্বাধিনায়ক মোঃ আব্দুল হামিদ। আজ ০৭ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ১১টার দিকে ঢাকা তেজগাঁও হেলিপ্যাড থেকে রাজবাড়ীর উদ্দেশ্যে যাত্রা করে রাষ্ট্রপতিকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি। দুপুর ১২টা ২৩ মিনিটে উপজেলার হরিণবাড়িয়া পদ্মার চরে সেনাবাহিনী কর্তৃক নির্মিত হেলিপ্যাডে অবতরণ করে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রাষ্ট্রপতি শীতকালীন প্রশিক্ষণের ব্রিগেড আক্রমনের মহড়া ও দরবার অনুষ্ঠানে যোগদান করেছেন। এ অনুষ্ঠান শেষে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে তিনি হেলিকাপ্টারযোগে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হবেন।

কালুখালী উপজেলার জীবনযাত্রার মান ছিল অনেক কষ্টকর। এ অঞ্চলের মানুষকে শুষ্ক মৌসুমে হেঁটে এবং বর্ষায় নৌকায় চলাচল করতে হয়। বিদ্যুৎ দূরের কথা আকাশের চাঁদ আর কেরোসিন তেলের হেরিকেনের আলোই ছিল একমাত্র ভরসা। স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি) রাজবাড়ীর উপ-সহকারী প্রকৌশলী এম এ ইউসুফ জানান, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সদর দপ্তর ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের শীতকালীন প্রশিক্ষণ ২০১৫ অনুষ্ঠিত হবে। ওই অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট মোঃ আবদুল হামিদ-এর আগমন উপলক্ষে কালুখালীতে এক কোটি তিন লাখ টাকা ব্যয়ে উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ২২ ডিসেম্বর থেকে রাজবাড়ী এলজিইডি ওই কাজ বাস্তবায়ন শুরু করেছে।

এ কাজের মধ্যে রয়েছে হরিণবাড়িয়া থেকে চরখাপুড়া পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার নতুন রাস্তা এইচবিবি (ইট) দ্বারা উন্নয়ন, সেনানিবাসের অভ্যন্তরে প্রায় দুই কিলোমিটার এইচবিবি রাস্তা নির্মাণ, হরিণবাড়িয়া বাজার থেকে দুই কিলোমিটার এইচবিবি রাস্তা সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ, রূপপুর মোড় থেকে হরিণবাড়িয়া বাজার পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ এবং চারটি হ্যালিপ্যাড ও সংযোগ রাস্তা নির্মাণ।

রাজবাড়ীর পল্লী বিদ্যুৎ অফিস সূত্রে জানা যায়, কালুখালী সেনানিবাস এলাকায় ১১ হাজার ভোল্টের ৯ কিলোমিটার নতুন বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণের কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। ৯ কিলোমিটার নতুন বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণে যেখানে তিন থেকে চার মাস সময় লাগে। সেখানে রাষ্ট্রপতির আগমন উপলক্ষে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ৮০ জন দক্ষ জনবল এবং ১৫ জন কর্মকর্তা ও তত্ত্বাবধায়ক বিরামহীনভাবে কাজ করে মাত্র ১২ দিনে সংযোগ চালু করেছেন। এতে ওই সেনানিবাস এলাকাসহ চরাঞ্চলের চর রাজপুর, হরিণবাড়িয়া, সাদারচর ও চরখাপুড়া এলাকার চার শতাধিক পরিবার, ২০টি গভীর নলকূপ, ৪০টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও দু’টি রাইস মিল বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আসবে।

রাজবাড়ী টেলিফোন এক্সচেঞ্জের উপ সহকারী প্রকৌশলী (বহিঃ) মোঃ শাহরিয়ার খান বলেন, রাজবাড়ী সেনানিবাসের জন্য খানগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ই-১ সার্ভিস যুক্ত দুটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগের লাইন টানা হয়েছে। এছাড়া পাংশা টেলিফোন এক্সচেঞ্জ থেকে রাজবাড়ী সেনানিবাসে ১০টি অস্থায়ী টেলিফোন সংযোগের কাজ চলছে।

“রাজবাড়ী সেনানিবাস” এ সেনাবাহিনীর শীতকালীন প্রশিক্ষণ মহড়া পর্যবেক্ষনের জন্য রাষ্ট্রপতির আগমনের বিষয়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর যশোর এরিয়া কমান্ডার ও ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান জানান, প্রস্তাবিত “রাজবাড়ী সেনানিবাস” এর নিজস্ব জায়গায় এবারের শীতকালীন মহড়ায় মহামান্য রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ এসেছেন এটা রাজবাড়ীবাসীর জন্য অত্যন্ত গর্বের বিষয়।শীতকালীন মহড়া চলাকালীন সময়ে জনগণের যে পরিমান শস্যহানী হবে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে তার ক্ষতি পূরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলেও জানান জিওসি।

Print
691 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close