স্ত্রীর পরকীয়া: বিয়ে করতে চাওয়ায় কুপিয়ে হত্যা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: স্ত্রী ডিভোর্স চেয়েছিলেন। স্বামী তা দিতে রাজি নন। ফল? স্ত্রীকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে টুকরো টুকরো করে কেটে স্যুটকেসে ভরে পুড়িয়ে দিলেন স্বামী। সোমবার নৃশংস এই খুনের ঘটনাটি ঘটেছে ভরতের হায়দরাবাদে। গ্রেফতার হয়েছে রূপেশকুমার অগ্রবাল নামে ওই ব্যক্তি।

পুলিশ জানায়, ২০০৮ সালে কঙ্গোতে থাকার সময়ে সিনথিয়ার সঙ্গে বিয়ে হয় রূপেশের। তারপর দু’জনেই চলে আসেন হায়দরাবাদে। তাঁদের সাত বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। সব কিছুই ঠিকঠাক চলছিল। কিন্তু আচমকাই দাম্পত্য জীবনে ঝামেলা শুরু হয় তৃতীয় এক ব্যক্তিকে ঘিরে।

রূপেশ জানতে পারেন, ফ্রান্সের এক ব্যক্তির সঙ্গে স্ত্রী সিনথিয়ার ইদানীং বন্ধুত্ব হয়েছে। বন্ধুত্ব এতটাই যে, রোজ সুযোগ পেলেই ফেসবুকে তাঁর সঙ্গে চ্যাট করতে বসে পড়েন স্ত্রী। এমনকী, ফ্রান্সের ওই ব্যক্তিকে বিয়ে করতে চেয়ে স্বামীর কাছ থেকে ডিভোর্স চান তিনি।

কিন্তু তাতে বিপত্তি আরও বাড়ে। বেঁকে বসেন স্বামী। এই নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে শুরু হয় জোর কলহ। সোমবারও তেমনই ঘটেছিল। রূপেশ এবং সিনথিয়ার মধ্যে কথা কাটাকাটি চলছিল। এর মধ্যেই রূপেশ ধারাল অস্ত্র দিয়ে সিনথিয়াকে খুন করে বলে অভিযোগ উঠেছে।

তারপর মৃতদেহ লোপাট করতে তা টুকরো টুকরো করে কেটে একটি স্যুটকেসে ভরে ফেলে। গাড়িতে সেই স্যুটকেসটা তুলে দেয়। তারপর মেয়েকে পাশে বসিয়ে গাড়ি চালিয়ে চলে যায় বাড়ি থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে একটি জঙ্গলের ধারে।

ছোট্ট মেয়ে গাড়িতেই বসেছিল। আর স্যুটকেসটা নিয়ে রূপেশ তখন জঙ্গলের ভিতরে ঢুকে আগুন ধরিয়ে ফিরে আসছিলেন। কিন্তু কোনও ভাবে গাড়ি কাদায় ফেঁসে যায়। স্থানীয় কয়েক জনের কাছে সাহায্য চান রূপেশ। গাড়িতে রক্তের দাগ দেখে সন্দেহ হয় তাঁদের। খবর পেয়ে পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করে। উদ্ধার করা গিয়েছে স্ত্রীর মৃতদেহের আধপোড়া টুকরোগুলিকে। জি়জ্ঞাসাবাদে রূপেশ স্ত্রীকে খুনের কথা স্বীকার করেছে বলে পুলিশের দাবি। -আনন্দবাজার।

Print
1113 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close