কেয়ামতের ছোট ছোট ১৩১টি আলামত

ইসলাম ডেস্ক: কেয়ামতের আলামত দুই ধরনের। ছোট ও বড়। ছোট আলামত বলতে সেসব লক্ষণকে বোঝানো হয় যা কেয়ামতের অনেক আগে থেকে সংঘটিত হবে। কেয়ামতের ছোট আলামতগুলো নিম্নরূপ :

১. রাসুলুল্লাহ (সা.) এর আগমন। বোখারি; ২. তাঁর ওফাত। বোখারি; ৩. তাঁর আঙুলের ইশারায় চন্দ্র দ্বিখন্ডিত হওয়া। সূরা কামার ১-২; ৪. সাহাবাগণের বিদায়। মুসলিম; ৫. বায়তুল মোকাদ্দাস বিজয়। বোখারি; ৬. দুইটি প্রলয়ঙ্করী মহামারী (যা ১৬ ও ২৫ হিজরিতে হয়েছিল।) বোখারি; ৭. নানা ধরনের ফিতনা প্রকাশ ঘটবে। মুসলিম; ৮. আকাশ মিডিয়ার বিস্তার। ইবনে আবি শায়বা; ৯. সিফফিনের যুদ্ধ (যা আলী ও মুয়াবিয়া (রা.) এর মাঝে ঘটেছিল)। বোখারি ও মুসলিম; ১০. খারেজিদের প্রকাশ। বোখারি; ১১. ৩০ জন নবুয়তের দাবিদার, মহামিথ্যুকের প্রকাশ। বোখারি; ১২. সুখ-শৌখিনতা বৃদ্ধি ও দূর-দূরান্ত পাড়ি দেয়া সহজ হয়ে যাবে। আহমাদ; ১৩. হেজাজ থেকে আগ্নেয়গিরি প্রকাশ। বোখারি; ১৪. মুসলমানদের সঙ্গে তুর্কিদের যুদ্ধ। (যা সাহাবিযুগে হয়েছিল) বোখারি; ১৫. জুলুমবাজ লোকেরা ছড়ি ও চামড়ার বেত দিয়ে নিরীহ মানুষকে প্রহার করবে। আহমাদ; ১৬. খুন বেড়ে যাবে। মুসলিম; ১৭. অন্তর থেকে আমানত উঠে যাবে। বোখারি; ১৮. ইহুদিদের অনুকরণের প্রবণতা বেড়ে যাবে। বোখারি; ১৯. ক্রীতদাসীর গর্ভ থেকে মালিকের জন্ম হবে। মুসলিম; ২০. স্বল্পবসনা নারীর সংখ্যা বেড়ে যাবে। মুসলিম; ২১. ছাগলের রাখাল, নগ্নপদের লোকেরা ও বস্ত্রবঞ্চিতরা অট্টালিকা হাঁকাবে। মুসলিম; ২২. চেনাজানা ও বিশিষ্ট লোকদের সালাম দেয়ার প্রচলন হবে। ইবনে খুজাইমা; ২৩. ব্যবসার ব্যাপক বিস্তার ঘটবে। আহমাদ; ২৪. স্বামীর ব্যবসায় (শেয়ার হিসেবে) স্ত্রী যোগ দেবে। আহমাদ; ২৫. কিছু ব্যবসায়ী গোটা বাজার নিয়ন্ত্রণ করবে। আহমাদ; ২৬. মিথ্যা সাক্ষী বেড়ে যাবে। আহমাদ; ২৭. সত্য সাক্ষ্য গোপনের প্রবণতা বাড়বে। আহমাদ; ২৮. মূর্খতা বেড়ে যাবে। বোখারি; ২৯. মানুষের অন্তরে হিংসা ও কৃপণতা বৃদ্ধি পাবে। আহমাদ; ৩০. প্রতিবেশীর সঙ্গে দুর্ব্যবহার বৃদ্ধি পাবে। আহমাদ

৩১. আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নের প্রবণতা বাড়বে। আহমাদ; ৩২. অশ্লীলতার সয়লাব শুরু হবে। আহমাদ; ৩৩. আমানতদারকে অবিশ্বাস আর খেয়ানতকারীদের বিশ্বাস করা হবে। হাকেম; ৩৪. সমাজের ভালো লোকেরা দ্রুত বিলুপ্ত হবে ও নিচু লোকদের উত্থান হবে। হাকেম; ৩৫. সম্পদ কোথা থেকে কীভাবে এলো তার বাছবিচার করবে না কেউ। বোখারি; ৩৬. যুদ্ধলব্ধ সম্পদের সুষ্ঠু বণ্টন হবে না। তিরমিজি; ৩৭. আমানতকে গনিমতের সম্পদ ভেবে ভোগ করা হবে। তিরমিজি; ৩৮. জাকাতকে জরিমানা মনে করা হবে। তিরমিজি; ৩৯. পার্থিব উদ্দেশ্যে এলম শিখবে। তিরমিজি; ৪০. মানুষ স্ত্রীর কথা শুনবে, মায়ের কথা শুনবে না। তিরমিজি; ৪১. পিতাকে দূরে রেখে বন্ধুদের কাছে টানা হবে। তিরমিজি; ৪২. মসজিদে উচ্চৈঃস্বরে কথা বলা ও হৈহট্টগোলের প্রবণতা দেখা যাবে। তিরমিজি; ৪৩. অপরাধী ও অসৎ লোকেরা বিভিন্ন সম্প্রদায়ের নেতা হবে। তিরমিজি; ৪৪. সবচেয়ে নিকৃষ্ট ব্যক্তি সমাজের নেতৃত্বে থাকবে। তিরমিজি; ৪৫. মানুষকে শ্রদ্ধা করা হবে তার অনিষ্ট ও ক্ষতির ভয়ে। তিরমিজি; ৪৬. ব্যভিচারকে অবৈধ মনে করা হবে না। বোখারি; ৪৭. পুরুষের জন্য রেশমকে হালাল মনে করা হবে। বোখারি; ৪৮. মদকে বৈধ মনে করা হবে। বোখারি; ৪৯. গানবাজনার অবৈধতার ধারণা বিলুপ্ত হবে। বোখারি; ৫০. মৃত্যু কামনা বেড়ে যাবে। বোখারি; ৫১. সকালের মোমিন বিকালে কাফের এবং বিকালের কাফের সকাল না হতেই ঈমানদার হয়ে যাবে। বোখারি; ৫২. মসজিদগুলোতে অতিরিক্ত সাজসজ্জা করা হবে। নাসাঈ; ৫৩. বাসাবাড়িতে সাজগোজে সীমালঙ্ঘন করা হবে। আদাবুল মুফরাদ; ৫৪. বেশি বেশি বজ্রপাত হবে। আহমাদ; ৫৫. লেখনী ও লেখকের পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে। আহমাদ; ৫৬. গলাবাজিকে পেশা বানানো হবে। আহমাদ; ৫৭. মানুষ কোরআনবিমুখ হয়ে যাবে এবং অন্য বইয়ের কদর ও বিস্তার হবে। তাবরানি; ৫৮. সমাজে কারি ফকিহ ও আলেম কমে যাবে। হাকেম; ৫৯. যারা নিজের যুক্তি দিয়ে কথা বলে এবং বেদাতে লিপ্ত, তাদের থেকে মানুষ এলম অর্জন করবে। ইবনুল মুবারক ফিয-যুহদ; ৬০. হঠাৎ মৃত্যুর হার বেড়ে যাবে। তাবরানি

৬১. নির্বোধরা নেতা হবে। বাজ্জার; ৬২. সময় কাছাকাছি হয়ে যাবে। বোখারি; ৬৩. স্বল্পবুদ্ধির লোকেরা জাতির মুখপাত্র বনে যাবে। মাজমাউজ যাওয়াইদ; ৬৪. নির্বোধরাই বেশি সফল হবে। ত্বহাবি; ৬৫. মসজিদকে রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করা হবে। হাকেম; ৬৬. মোহরানার আকার বৃদ্ধি পাবে। হাকেম; ৬৭. ঘোড়ার দাম বেড়ে যাবে। হাকেম; ৬৮. বাজারগুলো নিকটবর্তী ও সবকিছু হাতের নাগালে হয়ে যাবে। আহমাদ; ৬৯. অন্যসব জাতি মুসলিমদের নিধনে ঐক্যবদ্ধ হবে। আবু দাউদ; ৭০. মানুষ ইমামতি করতে চাইবে না। প্রাগুক্ত; ৭১. ঈমানদারদের অনেক স্বপ্ন সত্য প্রমাণ হবে। বোখারি; ৭২. মিথ্যার প্রচলন বাড়বে। মুসলিম; ৭৩. মানুষ একে অন্যকে চিনতে চাইবে না। কেউ কারও সঙ্গে একান্ত স্বার্থ ছাড়া পরিচিত হতে চাইবে না। আহমাদ; ৭৪. ভূমিকম্পের হার বেড়ে যাবে। আহমাদ; ৭৫. মহিলাদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে। বোখারি; ৭৬. পুরুষ কমে যাবে। বোখারি; ৭৭. অশ্লীল কাজ প্রচুর এবং প্রকাশ্যে হবে। মুসলিম; ৭৮. কোরআন পাঠ করে মানুষের কাছে বিনিময় চাওয়া হবে। আহমাদ; ৭৯. মোটা মানুষের সংখ্যা বেড়ে যাবে। বোখারি; ৮০. সাক্ষ্য চাওয়া ছাড়াই আগ বেড়ে সাক্ষ্য দেয়ার লোক প্রকাশ পাবে। মুসলিম; ৮১. মানত করে তা পুরা করবে না। মুসলিম; ৮২. শক্তিশালীরা দুর্বলদের ভক্ষণ করবে। আহমাদ; ৮৩. আল্লাহর বিধান বাদ দিয়ে মানব রচিত বিধান অনুসৃত হবে। আহমাদ; ৮৪. পশ্চিমাদের সংখ্যা বৃদ্ধি ও আরবরা কমে যাবে। মুসলিম; ৮৫. অভাবি লোক থাকবে না। জাকাত গ্রহণের লোক খুঁজে পাওয়া যাবে না। মুসলিম; ৮৬. ভূগর্ভ তার ভেতরের খনিজসম্পদ বের করে দেবে। মুসলিম; ৮৭. আকৃতি-বিকৃতির ঘটনা ঘটবে। তিরমিজি; ৮৮. ভূমিধস দেখা দেবে। তিরমিজি; ৮৯. আকাশ থেকে প্রস্তর বৃষ্টি হবে। তিরমিজি; ৯০. কেয়ামতের আগে এমন বৃষ্টি হবে যা সব কাঁচা-পাকা বাড়িকে নিমজ্জিত করে দেবে। কিন্তু উটের পশম দ্বারা নির্মিত (বিশেষ ধরনের) তাঁবু রক্ষা পাবে। আহমাদ

৯১. কেয়ামতের আগে বৃষ্টি হবে কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে ফসল হবে না। আহমাদ; ৯২. একটি ভয়াবহ দাঙা গোটা আরবকে পরিষ্কার করে দেবে (মানুষ মরে সাফ হয়ে যাবে)। আহমাদ; ৯৩. আল্লাহর হুকুমে বৃক্ষ কথা বলবে। বোখারি; ৯৪. মুসলমানদের সাহায্যার্থে পাথরের জবান খুলে যাবে এবং পাথরের আড়ালে লুকানো ইহুদিদের কথা অলৌকিকভাবে বলে দেবে সে। বোখারি; ৯৫. মুসলমানরা ইহুদিদের সঙ্গে চূড়ান্ত যুদ্ধ করবে। বোখারি; ৯৬. ফোরাত নদীতে সোনার পাহাড় আবিষ্কার হবে। বোখারি; ৯৭, কেউ গোনাহ করতে অপারগতা প্রকাশ করলে সমাজের মানুষ তাকে অচল, অসামাজিক, অযোগ্য ইত্যাদি তকমা দেবে। আহমাদ; ৯৮. আরব উপদ্বীপে নদীনালা ও পানির নহর হবে। মুসলিম; ৯৯. আহলাস নামক ফিতনা-দাঙ্গা দেখা দেবে। আবু দাউদ; ১০০. সাররা নামক আরেকটি ফিতনা প্রকাশ হবে। আবু দাউদ; ১০১. কেয়ামতের আগে দাহিমা নামক একটি ভয়াবহ দাঙ্গা সৃষ্টি হবে। আবু দাউদ; ১০২. এমন একটা সময় আসবে যখন এক সিজদার মর্যাদা গোটা পৃথিবী ও তন্মধ্যকার সবকিছুর চেয়ে বেশি হবে। বোখারি; ১০৩. মাসের শুরুতেই চাঁদ মোটা দেখা যাবে, যা সাধারণ নিয়মের ব্যতিক্রম। তাবরানি; ১০৪. মানুষ সিরিয়ামুখী হবে। আহমাদ; ১০৫. পশ্চিমাদের সঙ্গে মুসলমানদের মহাযুদ্ধ সংঘটিত হবে। তিরমিজি; ১০৬. মুসলমানরা কুসতুনতুনিয়া (ইস্তান্বুল) জয় করবে। তিরমিজি; ১০৭. মৃত ব্যক্তির পরিত্যক্ত সম্পদ বণ্টন করা হবে না। মুসলিম; ১০৮. গনিমত-যুদ্ধলব্ধ সম্পদে মানুষ সন্তুষ্ট হবে না। মুসলিম; ১০৯. পুরাতন যুদ্ধাস্ত্রের প্রচলন পুনরায় চালু হবে। তিরমিজি; ১১০. কিছুকাল বিরান থাকার পর পুনরায় বায়তুল মোকাদ্দাস আবাদ হবে। আবু দাউদ; ১১১. মদিনা তখন বিরান হবে এবং সেখানে পর্যটক ও অধিবাসী কমে যাবে। আবু দাউদ; ১১২. কামারের হাপর যেমন লোহার জং দূর করে, মদিনা তেমনিভাবে তার ভেতরের সব মন্দকে বের করে দেবে। বোখারি; ১১৩. পাহাড় নিজ স্থান থেকে সরে যাবে। (অলৌকিকভাবে অথবা মানুষ পাহাড় কেটে বসতি স্থাপন করবে)। তাবরানি; ১১৪. একজন কাহতানি বংশীয় লোক আত্মপ্রকাশ করবে এবং সবাই তাকে অনুসরণ করবে। বোখারি; ১১৫. জাহজাহ নামের এক লোক আবির্ভূত হবে। মুসলিম; ১১৬. কেয়ামতের পূর্বে চতুষ্পদ হিংস্র জন্তু ও জড় পদার্থ কথা বলার মতো অলৌকিক ঘটনা ঘটবে। তিরমিজি; ১১৭. ছড়ির মাথা থেকে কথা ভেসে আসবে। তিরমিজি; ১১৮. জুতার ফিতা থেকেও কথা ভেসে আসবে। তিরমিজি; ১১৯. এমন একটা সময় আসবে, মানুষের ঊরু অলৌকিকভাবে তার স্ত্রীর অনৈতিকতার কথা জানিয়ে দেবে। তিরমিজি;

১২০. ধরাপৃষ্ঠ থেকে ইসলামচর্চা বিলুপ্ত হয়ে যাবে। ইবনে মাজাহ; ১২১. আল্লাহ মানুষের অন্তর থেকে কোরআন উঠিয়ে নেবেন। ফলে কারও স্মৃতিতে আর কোরআন থাকবে না। ইবনে মাজাহ; ১২২. কিছু লোক মক্কার হারামে যুদ্ধ করতে আসবে এবং ইমাম মাহদিকে গ্রেফতার করতে চাইবে, তখন তাদের পুরো বাহিনীসহ ভূমিধস হবে। মুসলিম; ১২৩. বায়তুল্লাহর হজ পরিত্যাজ্য হয়ে যাবে। ইবনে হিব্বান; ১২৪. আরবের কোনো কোনো গোত্র মূর্তিপূজা আরম্ভ করবে। বোখারি; ১২৫. কোরাইশ বংশ বিলুপ্ত হয়ে যাবে। আহমাদ; ১২৬. একজন নিগ্রো কর্তৃক কাবা ভেঙে ফেলার ঘটনা ঘটবে। বোখারি; ১২৭. মোমিনদের জান কবজ করার জন্য একটি স্নিগ্ধ বাতাস বইবে। বোখারি; ১২৮. মক্কায় সুউচ্চ দালান নির্মিত হবে। ইবনে আবি শায়বা; ১২৯. উম্মতের উত্তরসূরিরা পূর্বসূরিদের অভিশাপ দেবে। ইবনে আবি শায়বা; ১৩০. নিত্যনতুন দামি বাহন বের হবে। ইবনে হিব্বান; ১৩১. ইমাম মাহদির আত্মপ্রকাশ ঘটবে। তিরমিজি।

আহমাদুল্লাহ বিন মুহাম্মাদ দেলোয়ার হুসাইন, সৌজন্যে : দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ

Print
591 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close