পার্লামেন্টে ‘বিব্রত’ টিউলিপ সিদ্দিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সদস্য বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত টিউলিপ সিদ্দিক অধিবেশন চলাকালীন বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখে পড়লেন। হাউস অব কমন্স থেকে বেরিয়ে কয়েক মিনিট বিশ্রাম নিয়ে আবার প্রবেশ করার পর ডেপুটি স্পিকার এলিয়ানর লায়িং (৫৭) তাকে প্রশ্নের মুখে ফেলেন।  টিউলিপ সিদ্দিকী (৩৩) সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা। দুই ঘণ্টার অধিক সময় চেম্বারে অবস্থান করার পর বিশ্রাম বিরতিতে যান তিনি। প্রায় ৪৫ মিনিট পর তিনি ফিরে আসেন। এ সময় ডেপুটি স্পিকার তাকে প্রশ্নবানে জর্জরিত করেন। এতে অস্বস্তিতে পড়েন টিউলিপ।

বুধবার হাউস অব কমন্সে ইউনিভার্সাল ক্রেডিট নিয়ে বিতর্কে অংশ নেন টিউলিপ। এ দিন দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে অধিবেশনে যোগ দেন তিনি। দুপুর আড়াইটার দিকে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বক্তব্য উপস্থাপন করেন টিউলিপ। এর ১৫ মিনিট পর তিনি বিশ্রামের জন্য বের হন। হাউসে ফিরে আসার পর ডেপুটি স্পিকার এলিয়ানর হাউস অব কমন্সের আচরণবিধি ভঙ্গের জন্য টিউলিপকে দায়ী করেন। একজন প্রত্যক্ষদর্শী দ্য স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকাকে বলেন, টিউলিপ তার প্রেগন্যান্সি সম্পর্কে কোন কথা না বললেও বিষয়টিকে সহজে না নিয়ে ডেপুটি স্পিকার তাকে আক্রমণ করে কথা বলেন। ‘হাউস অব কমনসে প্রেগন্যান্সি কার্ড ব্যবহার করবেন না’ বলে হুঁশিয়ার করেন এলিয়ানর।

টিউলিপ পুনরায় ডেপুটি স্পিকারের কাছে দুঃখ প্রকাশ করার পরও তিনি বিষয়টি ব্যক্তিগত পর্যায়ে নিয়ে তাকে আক্রমণ করেন। নারী হয়েও কীভাবে পার্লামেন্টের ডেপুটি স্পিকার হয়েছেন, বৈবাহিক জীবন কেমন কাটিয়েছেন, সেসব নিয়ে অনাবশ্যক বক্তব্য উত্থাপন করেন এলিয়ানর। এ সময় অস্বস্তিতে পড়েন টিউলিপ। উপস্থিত সংসদ সদস্যরাও এ বিষয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। দ্য স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকার কাছে টিউলিপ সিদ্দিক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে ডেইলি মেইল অনলাইন। এ বিষয়ে ডেপুটি স্পিকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিলের চিন্তা করছেন টিউলিপ। গত বছর মে মাসে যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড ও কিলবার্ন আসনে লেবার পার্টি থেকে নির্বাচিত হন বঙ্গবন্ধুর নাতনি ও শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ সিদ্দিক।

Print
537 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close