প্রধানমন্ত্রীর রুটিন বক্তব্যে জাতি হতাশ: বিএনপি

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: বুধবার সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে দেওয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যকে রুটিন ব্ক্তব্য বলে আখ্যায়িত করেছে বিএনপি। দলটির মতে, প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যে জাতি হতাশ হয়েছে। দেশ আজ গভীর সংকটে পড়েছে। এর সমাধানে দিক-নির্দেশনা দেবেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু তার বক্তব্য ছিল কেবল রুটিন বক্তব্য। বুধবার দুপুরে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এমন মন্তব্য করেন।

ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে নির্বাচন ব্যবস্থাকে দলীয় প্রভাব মুক্ত করা কিংবা সবার কাছে গ্রহণযোগ্য করার কোনও দিক-নির্দেশনা পাওয়া যায়নি। তিনি বলেন, বিগত দুই বছর ছিল গণতন্ত্রকে নির্বাসিত করবার সময়। নির্বাচন প্রক্রিয়াকে পুরোপুরি দলীয়করণ করে জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা হরণ করার বছর। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন ছিল একটি প্রহসন। ১৫৩ জন বিনা-প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা এবং জনগণসহ রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনকে বর্জন করার মধ্য দিয়ে একটি রাবার স্ট্যাম্প পার্লামেন্ট গঠন করা হয়েছে। ১২ জানুয়ারি একটি অদ্ভুত ধরনের সরকার গঠন করে দেশে গণতন্ত্রকে হত্যা করা হয়েছে।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, ২০১৫ সালের ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন এবং সর্বশেষ পৌরসভা নির্বাচনের মাধ্যমে এ কথা স্পষ্ট হয়েছে, এই সরকারের অধীনে ও বর্তমান নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় কোনও নির্বাচনই সুষ্ঠু হতে পারে না।

ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী জোর দিয়ে বলেছেন, গণমাধ্যম এখন স্বাধীন। এই বক্তব্য কোনওমতেই গ্রহণযোগ্য নয়। গণমাধ্যম এই সময়ে সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে কোনও কিছুই বলতে পারছে না। ভিন্নমতের পত্রিকা ও টেলিভিশন চ্যানেল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আমার দেশসহ বেশ কয়েকটি পত্রিকা  এবং চ্যানেল ওয়ান, ইসলামিক টিভি, দিগন্ত টেলিভিশন বন্ধ করা করে দেওয়া হয়েছে। সহস্রাধিক সংবাদকর্মী কর্মচ্যুত হয়েছেন। ইটিভির মালিকানা জোর করে কেড়ে নেওয়া হয়েছে। আমার দেশের সম্পাদক মাহমুদুর রহমান তিন বছর ধরে কারাগারে আটক রয়েছেন।

বিএনপির এই নেতা বলেন, সারাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট হয়েছে। কক্সবাজারের রামুতে বৌদ্ধ মন্দির ধ্বংস, দিনাজপুরের কান্তজির মন্দিরে বোমা বিস্ফোরণ, দিনাজপুরে মিশনারি ডাক্তারকে হত্যা চেষ্টা, বহু জায়গায় হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের উপাসনালয়ে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, মসজিদের ভেতরে গুলি করে মুসল্লি হত্যা, শিয়া-সুন্নি বিরোধ সৃষ্টি চেষ্টা, হোসনী দালনে বোমা বিস্ফোরণ, বিদেশি নাগরিক হত্যা, ব্লগার হত্যা, বুদ্ধিজীবী হত্যা, পুলিশ হত্যা এ সবই এই সরকারের ভ্রান্তনীতি ও ব্যর্থতার পরিচয় বহন করে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির  স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, যুগ্ম মহাসচিব মো. শাহজাহান, সহ দফতর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন প্রমুখ।

Print
850 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close