যশোরের উদীচী পিঠা উৎসব

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: শীত এলেই মনে হয় শীতের পিঠার কথা। পিঠা ছাড়া বাংলার শীত পরিপূর্ণ হয় না। খেজুরের রস যশোরের যশ সকলেই জানেন। তাই যশোরে শীতের সকালে কাঁপতে কাঁপতে মা, দাদী ও নানীদের হাতে তৈরি পিঠা খাওয়া গ্রামের পরিচিত দৃশ্য হলেও ব্যস্ত শহুরে জীবনে শীতকে ঘিরে উৎসবের আমেজে ঘরে ঘরে পিঠা তৈরির দৃশ্য বিরল। ব্যস্ত নাগরিক জীবনে গ্রাম বাংলার সেই ঐতিহ্য আর উৎসবের আবহকে নতুন করে জানান দিতে পিঠা উৎসব উৎযাপন করেছে উদীচী যশোর।

ভ্রাতৃতেত্বর বন্ধনে সকলকে একই সারিতে আনতে এবং মায়েদের হাতের যাদুকে প্রাধান্য দিতে উদীচীর এবারের পিঠা উৎসব ছিল একটু ভিন্ন ধারার। বুধবার সন্ধ্যায় সংগঠন প্রাঙ্গণে আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি অতিথি আপ্যায়নে ব্যস্ত ছিলেন উদীচী পরিবারের সদস্যবৃন্দ। পাটি সাপটা, ধুপি, পুলি, চিতই এবং পাকান পিঠা দিয়ে আপ্যায়ন করা হয় অতিথিদের। ‘হরেক রকম পিঠার মেলায় পড়শীরা সব কই’ এ প্রতিপাদ্যে উদযাপিত উৎসবটি রান্নাঘরের মা, মেয়ে বউদের সম্মানে উৎসর্গ করে উদীচী।

সেই ধারাবাহিকতায় আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থা সভাপতি রুনা লায়লা। বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক সাবিনা ইয়াসমিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্বের পতœী মোবাশিরা আহমেদ। সংগঠনের সহ সভাপতি তন্দ্রা ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে সংক্ষিপ্ত আলোচনা পর্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পিঠা  উৎসব উদযাপন পর্ষদের সদস্য সচিব সোহেল শামীম আশিষ। আলোচনায় প্রধান অতিথি এবং বিশেষ অতিথিবৃন্দ ছেলেবেলার স্মৃতিচারণ করে বলেন, পিঠা বাঙালীর ইতিহাস ঐতিহ্যের সাথে মিশে আছে। আধুনিকতার ছোয়ায় জীবনাচারণ বদলে গেলেও আমাদের নিজস্বতা ভুললে চলবে না। পিঠা তৈরি মেয়েদের কাজ এটি চিন্তা না করে পরিবারের পুরুষ সদস্যরাও যদি এ শিল্পকর্মের প্রতি আগ্রহ প্রকাশ করে তবে ঘরে ঘরে পিঠার উৎসব ভিন্ন রূপ পাবে।
উৎসবে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবীর, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব আসাদুল হক, দৈনিক কল্যাণ সম্পাদক একরাম উদ দ্দৌলা, ওয়ার্কস পার্টির পলিট ব্যুরো সদস্য ইকবাল কবির জাহিদ, সাংস্কৃতিক জোট সাবেক সভাপতি হারুন অর রশীদ, সুরবিতান সভাপতি আবু সালেহ তোতা, সুরধুনী সাধারণ সম্পাদক এড. মাহমুদ হাসান বুলু,  উদীচী উপদেষ্টা এড. আব্দুস শহীদ লাল, এড. মঞ্জুরুল হক প্রমুখ।
Print
1295 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close