কল্যাণপুর পোড়া বস্তিতে আগুন

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: রাজধানীর কল্যাণপুরের পোড়া বস্তিতে আগুনে বেশ কিছু কাঁচা ঘর পুড়ে গেছে। তবে হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। শুক্রবার সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে বস্তির আট নম্বর অংশে আগুনের সূত্রপাত হয়। শুরুতে স্থানীয়রা নিজ উদ্যোগে আগুন নেভানোর চেষ্টা করলেও পরে ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে। তারা প্রায় দুই ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের ডিউটি অফিসার মিজানুর রহমান জানান, সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে পোড়া বস্তিতে আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট ঘটনাস্থলে যায়। তবে নিরাপত্তার কথা ভেবে ইউনিটগুলো কিছু সময় আশপাশে অপেক্ষা করে। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে কাজ শুরু করে এবং দুপুর ১২টায় আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা।

তাৎক্ষণিকভাবে আগুন লাগার কারণ জানা যায়নি। তবে উদ্দেশ্যমূলকভাবে কেউ আগুন দিতে পারে বলে অভিযোগ করছেন স্থানীয়রা। ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, ফায়ার সার্ভিসের সদস্য ও বস্তির বাসিন্দারা পানি দিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করছে। টিন ও বেড়ার তৈরি বেশ কিছু ঘর পুড়ে গেছে।

এদিকে এ সময় বস্তির ভেতর ‘পুর্নবাসন ছাড়া বস্তি ছাড়বে না’, ‘প্রয়োজনে জীবন দিতেও প্রস্তুত’ এসব বলে স্লোগান দিতে দেখা যায় নারীদের। বস্তির বাসিন্দা মো. কামরুল জানান, ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা আরো আগে কাজ শুরু করলে ক্ষয়ক্ষতি কম হত। ঘটনাস্থলে দ্রুত আসতেও তাদের বাধা দেওয়া হয়েছে।

আশরাফ নামে আরো এক বস্তিবাসী অভিযোগ করেন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এ আগুন লাগানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার পোড়া বস্তি উচ্ছেদে হাইকোর্ট নিষেধাজ্ঞা জারি করে। তাই বস্তিবাসীদের কৌশলে সরিয়ে দিতে এ আগুন লাগানো হয়েছে। বস্তির কমিউনিটি বেসড অর্গানাইজেশনের (সিবিও) সাধারণ সম্পাদক মো. হান্নান আকন্দ বলেন, সকালে কে বা কারা বস্তির আট নম্বর অংশে আগুন দেয়। পরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এই আগুন লাগানো হয়েছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে গণপূর্ত বিভাগের আওতাধীন হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট কর্তৃপক্ষ বিপুল সংখ্যক পুলিশের উপস্থিতিতে বস্তিতে উচ্ছেদ অভিযান চালায়। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে বস্তিবাসীদের কয়েকদফা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ওইদিন দুপুরে কল্যাণপুরের পোড়া বস্তিতে চলমান উচ্ছেদ অভিযানের ওপর তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা জারি করেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে বস্তিবাসীকে কোনো প্রকার হয়রানি ও গ্রেফতার না করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।

Print
881 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close