পেট্রোল বোমা হামলায় নিহত যশোরের পপলু ও মাইশার লাশ উত্তোলন করে ময়নাতদন্ত

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পেট্রোলবোমা হামলায় নিহত যশোরের ঠিকাদার নূরুজ্জামান পপলু ও তার মেয়ে মাইশার লাশ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে। মামলার স্বার্থে প্রায় এক বছর পর লাশ দুটি উত্তোলন করা হলো। বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হাসান ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মোহাম্মদ ইব্রাহিমের উপস্থিতিতে যশোর শহরের ঘোপ কবরস্থান থেকে তাদের লাশ উত্তোলন করা হয়। এরপর ময়নাতদন্তের জন্য লাশ যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। ২০১৫ সালের ২ ফেব্রুয়ারি রাতে বেড়ানো শেষে কক্সবাজার থেকে ফেরার পথে পপলু ও মাইশাকে বহনকারী বাসটি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পৌছুলে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের পেট্রোলবোমা হামলার শিকার হয়। বোমায় সৃষ্ট আগুনে দগ্ধ হয়ে পপলু ও মাইশাসহ বাসের আট যাত্রী নিহত হন। আহত হন অন্তত ২১ জন।

এ ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানায় পরের দিন একটি হত্যা মামলা করে পুলিশ। নিহতদের মধ্যে সাতজনকে বিনা ময়নাতদন্তে দাফন করা হয় তাদের স্বজনদের আবেদনের প্রেক্ষিতে। কিন্তু আদালতে মামলার শুনানি চলাকালে কুমিল্লার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুনতাসির আহমেদ নিহত সকলের ময়নাতদন্তের আবশ্যকতার প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করেন। এবং গত ২ সেপ্টেম্বর পপলু ও মাইশাসহ নিহত ওই সাতজনের লাশ উত্তোলন করে ময়নাতদন্ত করে রিপোর্ট দাখিলের নির্দেশ দেন আদালত। ওই নির্দেশনা মতে বৃহস্পতিবার পপলু ও মাইশার লাশ উত্তোলন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই মোহাম্মদ ইব্রাহিম, সাব ইন্সপেক্টর। এদিকে, দুপুরে শহরের ঘোপ কবরস্থান থেকে লাশ উত্তোলন শেষে তা ময়নাতদন্তের জন্য যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে তিন সদস্যের একটি মেডিকেল টিম লাশ দুটির ময়নাতদন্ত করে। দ্রুতই ময়নাতদন্ত রিপোর্ট প্রদান করা হবে বলে জানিয়েছেন যশোর মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ও গঠিত মেডিকেল টিমের প্রধান ডা. হুসাইন সাফায়েত।

Print
1853 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close