শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশের হামলা উদ্দেশ্য প্রণোদিত: ইমরান এইচ সরকার

যশোর এক্সপ্রেস ডেস্ক: ২০ জানুয়ারি গণজাগরণ মঞ্চের পাকিস্তান দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশের হামলার পেছনে অন্য কোনও উদ্দেশ্য আছে বলে অভিযোগ করেছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার। তিনি বলেন,  সেদিন পুলিশের যে আচরণ আমরা দেখেছি, খুব সহজেই বোঝা যায় এটি কোথা থেকে এসেছে। শুক্রবার বিকেলে শাহবাগের প্রজন্ম চত্বরে পাকিস্তান দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে আয়োজিত এক গণসমাবেশে তিনি এ অভিযোগ করেন।

পাকিস্তান দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশি হামলার প্রসঙ্গে ইমরান বলেন, বহুবার কর্মসূচি করে সরকারকে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। কিন্তু সরকার এরপরও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় গণজাগরণ  মঞ্চের নেতা-কর্মীরা সে দেশের দূতাবাস ঘেরাও করতে গিয়েছিলেন। কিন্তু পুলিশ সেই শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে উস্কানি ছাড়াই হামলা করেছে।

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র বলেন, যখন একের পর এক  পুলিশ বাহিনীর কিছু পথভ্রষ্ট সদস্য নানাভাবে সাধারণ মানুষকে নিপীড়ন করছেন, সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা বিকাশ সাহাকে নির্যাতন করেছেন, ব্যাংকার রাব্বিকে নির্যাতন করেছেন, তখন এ সবকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্য পুলিশ বাহিনীর প্রধান কর্মকর্তারা নানারকম কথা বলছেন। যা জনগণকে নিপীড়ন করার উৎসাহ দিচ্ছে পুলিশ বাহিনীর কিছু সদস্যকে।

অভিযোগ করে ইমরান আরও বলেন, পাকিস্তান বাংলাদেশে তাদের দূতাবাসকে জঙ্গিবাদী কার্যক্রমে ব্যবহার করছে। সেখানে জাল টাকা তৈরি করা হচ্ছে, দূতাবাসের কর্মকর্তারা জঙ্গিদের অর্থ দিচ্ছে এদেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য।তিনি বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধীদের মামলার রায় কার্যকরের পরপরই গণহত্যার দায় অস্বীকার করে পাকিস্তান বিবৃতি দিচ্ছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে হেয় করছে। তাই সরকারের উচিত, পাকিস্তানের এসব অপচেষ্টাকে প্রতিহত করার ব্যবস্থা নেওয়া। সে ব্যবস্থা সরকার তাদের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেও নিতে পারে আবার অন্যভাবেও নিতে পারে।

ইমরান বলেন, কূটনৈতিক সম্পর্ক বা বন্ধুত্বের কিছু নিয়ম রয়েছে, এটি দ্বি-পাক্ষিক বিষয়। সম্পর্ক রক্ষা করতে হলে দু’পক্ষকেই এগিয়ে আসতে হয়। আজকে বাংলাদেশ শুধু বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে যাবে, আর পাকিস্তান বাংলাদেশে জঙ্গী কার্যক্রম পরিচালনা করবে, সার্বভৌমত্বের ওপর আঘাত হেনে সম্পর্কের অমর্যাদা করে যাবে, তারপরও বাংলাদেশ সরকার কিছু না বলে তা মেনে নেবে, সেটাকে সম্পর্ক রক্ষা বলে না। গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী শিবলী হাসানের সঞ্চালনায় সমাবেশে  আরও বক্তব্য রাখেন মঞ্চের সংগঠক মারুফ রসুল, কর্মী ভাস্কর রাসা প্রমুখ।

Print
993 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close