জঙ্গি নিব্রাসের বন্ধুও জঙ্গি!

এক্সপ্রেস ডেস্ক: রাজধানীর গুলশানে যৌথবাহিনীর অভিযানে নিহত জঙ্গি নিব্রাস ইসলাম ও কল্যাণপুরে ‘জঙ্গি আস্তানায়’ গোলাগুলিতে নিহত জঙ্গি সেজাদ রউফ মরক্কো ওরফে অর্ক ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিল।

দ্যা ডেইলি স্টারের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, নিব্রাসের মত অর্কও পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবের সাথে আড্ডা দিতে ভালবাসতেন। তারা গান ও মিউজিক অনেক পছন্দ করতেন।

সেজাদ আমেরিকার একজন নাগরিক। সে তার পরিবারসহ শিকাগো থেকে কয়েক বছর আগে বাংলাদেশে আসেন। এখানে এসে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে পড়াশোনা করেন। এরপর তিনি নিব্রাসের সাথে নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেন।

সেজাদের বাবা ও তার সম্পূর্ণ পরিবার আমেরিকার নাগরিকত্ব পেয়েছেন। তার বাবা বিশাল ধনী এবং তার দাদা সাবেক ডিফেন্সের কর্মকর্তা ছিলেন।

সেজাদের মায়ের ক্যান্সার ধরা পড়ার পর তারা সপরিবারে বাংলাদেশে চলে আসে। এখানে এসে সেজাদকে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে পড়াশোনা করানো হয়। তার বিবিএ পড়া শেষ। এখন নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে এমবিএ তে পড়ছিলেন।

২০০৯ সালে সেজাদের মা মারা যায়। এরপর থেকে তিনি ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়া শুরু করে। তার পরিবারের সবাই বলছে যে, তারা কখনও কল্পনাও করেনি, সে জঙ্গি হয়ে যাবে।

সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার ভোর পর্যন্ত কল্যাণপুরে জঙ্গি আস্তানায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে ৯ জঙ্গি নিহত হয়। এদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সাতজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। অর্ক ওই ৭ জনের মধ্যে একজন। র‌্যাবের নিখোঁজের তালিকায় তার নাম দুই নম্বরে রয়েছে।

মাসুদুর রহমান জানান, সেজাদ রউফ মরক্কো নর্থ সাউথ বিশ্বিবদ্যালয়ের বিবিএর শিক্ষার্থী। গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলার ঘটনায় যৌথবাহিনীর অভিযানে নিহত নিব্রাসের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিল অর্ক। অর্ক দীর্ঘদিন ধরে নিখোঁজ ছিলেন। তার বাসা রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় (বাসা -৩০৪, রোড -১০, ব্লক-সি)। বাবার নাম তৌহিদ রউফ। ভাটারা থানায় নিখোঁজের ব্যাপারে একটি জিডি করে তার পরিবার। জিডি নম্বর-৩৯২।

উল্লেখ্য, গত ১ জুলাই রাত পৌনে ৯টার দিকে গুলশানের হলি আর্টিসান রেস্তোরাঁয় ঢুকে বেশ কয়েকজনকে জিম্মি করে জঙ্গিরা। পরদিন সকালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অভিযানে ছয় জঙ্গি নিহত হয়, যাদের একজন নিব্রাস। ঘটনাস্থল থেকে ২০ জিম্মির লাশ উদ্ধার হয়, যাদের অধিকাংশই ছিলেন বিদেশি।

Print
477 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close