আসন্ন কাউন্সিলে আঃ লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে আসছে দারুন চমক !

এক্সপ্রেস ডেস্ক: আগামী ২৮ মার্চ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২০তম ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। আসন্ন এই সম্মেলনকে ঘিরে ইতমধ্যেই চলছে পদ প্রত্যাশী নেতা-কর্মীদের প্রচার-প্রচারণা। দলের নীতি- নির্ধারনী পর্যায়ের সিনিয়র নেতাদের সু-দৃস্টির আশায় নতুন উদ্যমে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন অনেকেই। এ সম্মেলনকে কেন্দ্র করেই চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। বিশেষ করে কে কোন পদ পেতে যাচ্ছেন, কার সম্ভাবনা বেশি ইত্যাদি নানান আলোচনায় সরগরম রাজনৈতিক আড্ডার টেবিল। তবে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হচ্ছে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে নিয়ে। ‘জয় এবার পুরোদস্তুর রাজনীতিতে আসছেন’  ‘ কাউন্সিলে জয়কে দলের কোনো পদে দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে তা নিয়েও অনেকের আনুমানিক ধারনার কথা আসছে ভেসে ভেসে।

শুধু দলের তৃণমূল নেতা-কর্মীরাই নয় কেন্দ্রীয়ভাবেও জয়কে নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে নানা কৌতূহল। এ মুহূর্তে সজীব ওয়াজেদ জয় সরাসরি আওয়ামী লীগের কোনো পদে না থাকলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করছেন । তবে  জয়ের সক্রিয় রাজনীতিতে আসার দাবী  বিশেষত তরুন নেতৃত্বের পক্ষ থেকেই সবচেয়ে বেশি । কেন্দ্রীয় নেতাদের সুত্র থেকেও খবর ভাসছে এবার কেন্দ্রীয় কমিটিতে আগের বারের চাইতেও বেশি আকারে থাকবে তরুন নেতৃত্ব। সেই সুবাদেই নেতা-কর্মীদের অনেকেই মনে করছেন জয় কেন্দ্রীয় কমিটিতে আসলে দলের জন্য ভালো হবে। যোগ হবে একজন সৎ ও আদর্শবান রাজনীতিবিদের। তাদের আশা-‘জয় অন্তত যুগ্মসাধারণ সম্পাদকের পদ পাবেন’ এবারের সম্মেলনে ।

নেতা-কর্মীদের ভাষ্য, রাজনীতির বাইরে থেকেও নিজেকে আলাদা পরিচয়ে দেশের মানুষের কাছে (বিশেষত তরুন প্রজন্মের কাছে) ইতমধ্যে জয়  প্রতিষ্ঠিত করেছেন । এ প্রসঙ্গে আঃ লীগের একজন কেন্দ্রীয় নেতা জানান, ‘ জয় রাজনৈতিক পরিবারের ছেলে। তার নানা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি। বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি। তার পারিবারের সুদীর্ঘ রাজনীতি এদেশের ইতিহাস-ঐতিহ্যের সাথে মিশে আছে। কিন্তু পরিবারতন্ত্রের বাইরে থেকেও রাজনীতিতে আসার যোগ্যতা জয়ের আছে। এটা ইতোমধ্যেই প্রমাণিত হয়েছে বলে মনে করেন দলের নেতা-কর্মীরা। কেবল দেশে নয়, আন্তর্জাতিক মহলেও তরুণ প্রযুক্তিবিদ হিসেবে তার খ্যাতি রয়েছে। দেশের তরুণ প্রজন্মের কাছে তার গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। এ অবস্থায় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জয়কে প্রয়োজন বলে মনে করেন দলটির নেতা-কর্মীরা।

অন্যদিকে, এতদিন রাজনীতিতে খুব একটা সক্রিয় না থাকলেও সম্প্রতি রাজনীতিতে আগের চাইতে অনেক বেশি সক্রিয় দেখা যাচ্ছে  জয়কে। বিভিন্ন সময়ে রাজনৈতিক আলোচনায় বিবৃতি দিচ্ছেন তিনি। সম্প্রতি তিনি (সজিব ওয়াজেদ জয় ) নিজেও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, দলের তরুণ এমপি ও অপেক্ষাকৃত নবীণ মন্ত্রীদের সাথে বৈঠকে রাজনীতি নিয়ে নিজের মনোভাবের কথা জানিয়েছে। খুব পরিস্কার করে না বললেও দলের তৃনমুল নেতা-কর্মীদের সাথে তিনি কাজ করতে চান সে কথা অনেকটাই স্পস্ট হয়েছে তার বিভিন্ন বক্তব্যে । অতি সম্প্রতি তরুনদের সাথে মতবিনিময়ের একটি অনুষ্ঠানে  জয় বলেন ‘আগামী নির্বাচনের কথা মাথায় নিয়ে সে অনুযায়ী প্রস্তুতি শুরু করতে হবে। সাম্প্রদায়িকতা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জাতীয়তাবোধ জাগ্রত করতে হবে। আর জাতীয়তাবোধ জাগ্রত করাই আওয়ামী লীগের মূল লক্ষ্য।’ একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র বলছে, জয়ের এমন আগ্রহ থেকেই আওয়ামী লীগের একটি গ্রুপ তাকে কেন্দ্রীয় কমিটিতে অভিষেকের মাধ্যমে  প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে সক্রিয় করতে চান। সে অনুযায়ী কাউন্সিলকে সামনে রেখে কাজও করছেন তারা ।

Print
1210 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close