ভালবাসা দিবসে যশোরে স্বেচ্ছায় ‘রক্তদান উৎসব’

এক্সপ্রেস ডেস্ক: বিশ্ব ভালবাসা দিবসে যশোরে ব্যতিক্রমী আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে স্বেচ্ছায় ‘রক্তদান উৎসব’। ‘মায়ের চোখের অশ্রু তার সন্তানকে বাঁচাতে পারে না, কিন্তু আপনার দান করা এক ব্যাগ রক্ত বাঁচাতে পারে একটি সম্ভাবনাময় জীবন’ এমন আহবান জনিয়ে রোববার দিনব্যাপী এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। ‘আমাদের ভালবাসা মানুষের জন্য প্রবাহিত হোক মহত্বের ধারায়’ এমন প্রত্যয় ব্যক্ত করে উৎসবের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক ডক্টর হুমায়ুন কবীর।।

যশোরের টাউন হল প্রাঙ্গনে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি যশোর ইউনিটি, থ্যালাসেমিয়া ও হিমোফিলিয়া সমিতি যশোর, আমার যশোর ও উৎসব কম্পিউটার ট্রেনিং ইন্সটিটিউটের যৌথ উদ্যোগে ষষ্ঠ বারের মত এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘অর্থ সম্পদ দান করলে সমাজে সম্মান বাড়ে, রক্তদানে বাড়ে শুধু মাহাত্ম্য’, ‘আপনার দেওয়া রক্ত হতে পারে, অন্যেও বেঁচে থাকার মূল চালিকা শক্তি’ এমন আহবানে মানুষের প্রতি ভালবাসায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ১শ’১২জন ১৮ উর্দ্ধ বিভিন্ন বয়সী শিক্ষার্থী, সাংবাদিক ও যুবক-যুবতী এ রক্তদান উৎসবে রক্তদান করেন।

এ উৎসবে আলোচনা সভা, ‘স্বেচ্ছায় রক্তদানের প্রয়োজনীয়তা ও উপকারিতা’ শীর্ষক রচনা প্রতিয়োগিতা, ‘রোগী ও রক্তদান’ শীর্ষক চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ডক্টর হুমায়ুন কবীর বলেন, জীবনদায়ী রক্তের কোনও বিকল্প নেই। কারণ ল্যাবরেটরিতে রক্ত উৎপাদন করা যায় না। সচেতন হয়ে মানবিক মূল্যবোধ থেকে রক্তদান করলে একজন মুমূর্ষরোগী বেঁচে উঠতে পারে। তিনি বলেন, শুধুমাত্র সদিচ্ছাতেই রক্তদান সম্ভব। রক্তদান করে মুমূর্ষু রোগীর প্রয়োজনীয় রক্ত সরবরাহ নিশ্চিত করতে ১৮ উর্দ্ধ সকলকে এগিয়ে এসে এ মহৎ কর্মযজ্ঞে সামিল হওয়ার আহবান জানান তিনি।
সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি যশোর ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান টুকুন। এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রবীণ শিক্ষাবীদ তারাপদ দাস, নিরাপদ দত্ত, জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান, তির্যক যশোরের সাধারণ সম্পাদক দিপংকর দাস রতনসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। স্বাগত বক্তব্য দেন উৎসব আয়োজনের সদস্য সচিব গোপাল বিশ্বাস। স্বেচ্ছায় রক্তদানে উদ্বুদ্ধ করতে দিনের বিভিন্ন সময়ে উপস্থিত হয়ে রক্তদানের অনুভূতি প্রকাশ করেন জেলা সহকারী তথ্য অফিসার জাহারুল ইসলাম টুটুল, বিএফইউজের নির্বাহী কমিটির সদস্য প্রণব দাস, জেলা মহিলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তন্দ্রা ভট্টাচার্য্য, নারী নেত্রী তহমিনা কাকলী উৎসব কমিটির আহবায়ক অজয় দত্ত প্রমুখ।
উৎসবে এসে এবারই প্রথম রক্ত দান করেছেন যশোর সরকারি সিটি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ছাত্র মামুন হোসেন। তিনি জানান, এখানে এসে অনেকের রক্ত দান করতে দেখে ভাল লেগেছে। তাদের দেখা দেখি আমিও এ উৎসবে সামিল হয়েছি। প্রথমে একটু ভয় লাগছিল। তবে রক্ত দেয়ার পর খুব ভাল লাগছে। কোন অসুবিধা হয়নি। তিনি এখন থেকে প্রতিনিয়ত রক্তদান করবেন বলে জানান। একই অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন জেসমিন আক্তার, অর্তি মিত্র, ফাতেমা খাতুন প্রমুখ। বিকেলে রচনা ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বাউল সংগীত পরিবেশন করেন পরিতোষ ও তার দল।
Print
1705 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close