জনপ্রশাসন পুরস্কার কর্মীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা বাড়াবে : প্রধানমন্ত্রী

এক্সপ্রেস ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাজে উৎসাহ প্রদানের জন্য দেশে প্রথমবারের মতো প্রবর্তিত ‘জনপ্রশাসন পদক ২০১৬’ বিতরণ করেছেন।
প্রধানমন্ত্রী স্ব-স্ব ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ৩০ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এই পদক বিতরণ করেন।
অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার বিভিন্নমুখী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এই পদক সেসব কর্মসূচির কর্মীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা বাড়াবে। উৎসাহ-উদ্দীপনা বাড়বে। যারা পুরস্কৃত হলেন, তাদের কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ এই পদক। জাতীয় ও মাঠ পর্যায়ে যথাক্রমে ১৩ ও ১৭ জনকে পুরস্কার দেওয়া হলো। আগামীতে আরও দেওয়া হবে।
সেবার মনোভাব নিয়ে দায়িত্ব পালন করতে হবে-জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পদোন্নতি দিয়েছি। ১২৩ শতাংশ বেতন বৃদ্ধি করেছি। আমরা যে বাজেট বা কর্মসূচি হাতে নেই, তা যেন দ্রুত বাস্তবায়ন হয়, এটিই চাই। এ জন্য কর্মীদের আরও এগিয়ে যেতে হবে। শুধু চাকরির স্বার্থে চাকরি নয়, জনগণের জন্য কাজ করা পবিত্র দায়িত্ব, সে হিসেবে কর্মসম্পাদন করতে হবে।’
জনপ্রশাসন মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সভাপতিত্বে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এইচ. এম. আশিকুর রহমান, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. শফিউল আলম এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীও অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।
পুরস্কার হিসেবে ১৮ ক্যারেট স্বর্ণের পদক, এক লাখ টাকা (জাতীয় পর্যায়ে দলগত পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত) ক্রেস্ট ও সনদপত্র প্রদান করা হয়।
রহিমা খাতুনকে (প্রশাসন) ব্যক্তিগত ক্ষেত্রে জন প্রশাসন পদক-২০১৬ (সাধারণ) তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সরকারি কাজের ডিজিটালাইজেশনে জন প্রশাসন পুরস্কার সাধারণ (দলগত) অর্জন করেছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক্সেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রকল্পের পরিচালক মো. মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে উপসচিব জাহিদ হোসেন পনির, সহকারী পরিচালক (বিসিএস অ্যাডমিন একাডেমি) জিএম সরফরাজ, সহকারী পরিচালক (পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়) তন্ময় মজুমদার ও সহকারী প্রোগ্রামার মো. মোতাহার হোসেন।
গভার্নেন্স ইনোভেশন ইউনিট, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় (জিআইইউ) এর পক্ষে মহাপরিচালক মো. আবদুল হালিম প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পুরস্কার গ্রহণ করেন।
কৃষকের ডিজিটাল ঠিকানা সফটওয়াযার তৈরির জন্য সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শাহাদাত হোসেন সিদ্দিকী, অনলাইন রেডিও নারায়ণগঞ্জ চালু এবং সফলভাবে পরিচালনায় কারিগরি ক্ষেত্রে (দলগত) জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান মিয়া, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শাহিন আরা বেগম, সহকারী কমিশনার জয়া মারিয়া পেরেরা ও সহকারী কমিশনার ফারহানা আফসানা চৌধুরীকে পুরস্কার প্রদান করা হয়।
টেকনিক্যাল ফিল্ডের প্রাতিষ্ঠানিক ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক্সেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রকল্পকে পুরস্কৃত করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (পিএমও) কবির বিন আনোয়ার প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পুরস্কার গ্রহণ করেন।
জেলা পর্যায়ে ব্যক্তিগত ক্ষেত্রে (সাধারণ) আরও পুরস্কার পেয়েছেন ঈশ্বরগঞ্জের ইউএনও রাজীব কুমার সরকার, দামুড়হুদার ইউএনও মো. ফরিদুর রহমান এবং পঞ্চগড় সদর উপজেলার সমবায় কর্মকর্তা মো. মামুন কবির।
পুরস্কারপ্রাপ্তির তালিকায় আরও আছেন সড়ক ও জনপথের (সওজ) যুগ্ম সচিব এবং ফেনীর সাবেক জেলা প্রশাসক মো. হুমায়ুন কবির খন্দকার, ‘ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট’ প্রকল্পের সমন্বয়ক এবং ফেনীর সাবেক অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. এনামুল হক, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর ফেনীর উপপরিচালক ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী, ফেনী সদরের ইউএনও পিকেএম এনামুল করিম, ফেনী সদরের লেমুয়া ইউনিয়নের সাব অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার রবীন্দ্রনাথ দত্ত, ফেনী চুনুয়া ইউনিয়নের পরিবার পরিকল্পনা বিষয়ক পরিদর্শক মীর আজম হোসেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক এবং রংপুরের সাবেক জেলা প্রশাসক ফরিদ আহমেদ, এডিসি (রাজস্ব) রংপুর মোস্তাইন বিল্লাহ, এডিসি (রাজস্ব) শেরপুর এবং রংপুর পীরগঞ্জের সাবেক ইউএনও এটিএম জিয়াউল ইসলাম, দিনাজপুরের বোচাগঞ্জের ইউএনও এবং সাবেক সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রাশেদুল ইসলাম, রংপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসএম গোলাম কিবরিয়া প্রমুখ।
জন প্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন।

Print
754 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close