দেশের সবচেয়ে ধনী আকিজ পরিবার

এক্সপ্রেস ডেস্ক: আকিজ গ্রুপ— বর্তমানে দেশের সবচেয়ে ধনী পরিবার। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সর্বশেষ হিসাবে, আকিজ পরিবারের পাঁচ সদস্যের নিট সম্পদের পরিমাণ ৭০০ কোটি টাকা। সূত্রমতে, গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা শেখ আকিজ উদ্দিন নিজেই সব সম্পদ ছেলেদের মাঝে ভাগ করে দিয়ে যান। এর মধ্যে আকিজ গ্রুপের মূল অংশের নেতৃত্বে রয়েছেন পাঁচ ভাই শেখ বশির উদ্দিন, শেখ জামিল উদ্দিন, শেখ জসিম উদ্দিন, শেখ শামীম উদ্দিন ও শেখ নাসির উদ্দিন। এনবিআরের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী, তাদের প্রত্যেকেই সমান ১৪০ কোটি টাকার নিট সম্পদের মালিক। গ্রুপ-সংশ্লিষ্টদের তথ্যমতে, শেখ আকিজ উদ্দিনের রেখে যাওয়া ব্যবসা আরো সম্প্রসারিত হয়েছে পাঁচ সন্তানের নেতৃত্বে। ২০০৬ সালের পর গ্রুপে যুক্ত হয়েছে নতুন কিছু প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে আকিজ গ্রুপের রয়েছে দেড় ডজন প্রতিষ্ঠান। আকিজ বিড়ি ফ্যাক্টরি লিমিটেড, আকিজ সিমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড, আকিজ কম্পিউটার লিমিটেড, আকিজ ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেড, আকিজ অনলাইন লিমিটেড, আকিজ পার্টিকেল অ্যান্ড হার্ডবোর্ড মিলস লিমিটেড, আকিজ ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, আকিজ প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, আকিজ রিয়েল এস্টেট লিমিটেড, আকিজ টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড, আকিজ জর্দা ফ্যাক্টরি লিমিটেড, ঢাকা টোব্যাকো ইন্ডাস্ট্রিজ (সিগারেট) ও ঢাকা টোব্যাকো ইন্ডাস্ট্রিজ (লিফ) এর অন্যতম। আকিজ গ্রুপের দাবি, দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে আসছে তারা। এ গ্রুপে কর্মরত প্রায় ৫০ হাজার শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তা। বছরে ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা সরকারের কোষাগারে জমা দিচ্ছে গ্রুপ-সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো। দেশে পাট, বেভারেজ ও টোব্যাকো খাতের নেতৃত্বে রয়েছে আকিজ গ্রুপ। দেশের সবচেয়ে বড় জুট মিলটিও এখন আকিজের। ঢাকা টোব্যাকোও দেশের অন্যতম শীর্ষ প্রতিষ্ঠান। জানা গেছে, আকিজ গ্রুপের উত্থান মূলত বিড়ি দিয়েই। পঞ্চাশের দশকে বিড়ি দিয়ে ব্যবসা শুরু করে ধীরে ধীরে অন্যান্য খাতেও মনোযোগ দেন গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা শেখ আকিজ উদ্দিন। ১৯৬০ সালে যশোরের অভয়নগরে গড়ে তোলেন অত্যাধুনিক চামড়া কারখানা এসএএফ ইন্ডাস্ট্রিজ। এর পর ১৯৬৬ সালে প্রতিষ্ঠা করেন ঢাকা টোব্যাকো ইন্ডাস্ট্রিজ, ১৯৭৪ সালে আকিজ প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, ১৯৮০ সালে আকিজ ট্রান্সপোর্টিং এজেন্সি লিমিটেড ও ১৯৮৬ সালে জেস ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড। নব্বইয়ের দশকে অর্থাৎ ১৯৯২ সালে গ্রুপটির অধীন গড়ে ওঠে আকিজ ম্যাচ ফ্যাক্টরি লিমিটেড, ১৯৯৪ সালে আকিজ জুট মিল লিমিটেড, ১৯৯৫ সালে আকিজ সিমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড ও আকিজ টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড। এছাড়া ১৯৯৬ সালে গড়ে তোলা হয় আকিজ পার্টিকেল বোর্ড মিলস লিমিটেড, ১৯৯৭ সালে আকিজ হাউজিং লিমিটেড ও ১৯৯৮ সালে সাভার ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। গ্রুপের অন্যতম প্রতিষ্ঠান আকিজ ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেড গড়ে ওঠে ২০০০ সালে। একই বছর চালু হয় আকিজ অনলাইন লিমিটেড ও নেবুলা লিমিটেড। আর ২০০১ সালে আবির্ভূত হয় আকিজ করপোরেশন লিমিটেড ও আকিজ ইনস্টিটিউট অ্যান্ড টেকনোলজি লিমিটেড, ২০০৪ সালে আকিজ এগ্রো লিমিটেড ও ২০০৫ সালে আকিজ পেপার মিলস। আকিজ পরিবারের ভাষ্য, আপন মেধা ও যোগ্যতা দিয়েই সবসময় ব্যবসা করেছেন শেখ আকিজ উদ্দিন। মেনে চলেছেন রাষ্ট্রীয় সব নিয়ম-নীতি। ব্যবসার মাধ্যমে সবসময়ই তিনি রাষ্ট্রকে কিছু দিতে চেয়েছেন। রাষ্ট্র বা সরকার থেকে কোনো সুযোগ-সুবিধা নেয়ার নজির আকিজ গ্রুপে ছিল না। এখনো নেই। আকিজ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) শেখ বশির উদ্দিন এ প্রসঙ্গে বণিক বার্তাকে বলেন, তাদের ব্যবসা-বাণিজ্য সবকিছুই বাবার অবদান। বাবার শেখানো নিয়ম-নীতি মেনে তারা ব্যবসা করছেন। চেষ্টা করে যাচ্ছেন একে আরো বিকশিত করার। আকিজ পরিবারের এ পাঁচ ভাইয়ের বাইরে অন্য সদস্যদের নেতৃত্বেও রয়েছে বেশকিছু প্রতিষ্ঠান। আদ-দ্বীনের নির্বাহী পরিচালক হিসেবে রয়েছেন বড় ভাই ডা. শেখ মহিউদ্দিন। এছাড়া শেখ মোমিন উদ্দিন, শেখ আফিল উদ্দিন, শেখ আমিন উদ্দিন, আজিজ উদ্দিনেরও রয়েছে পৃথক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। আকিজ গ্রুপ বর্তমানে দেশের অন্যতম শীর্ষ করপোরেট প্রতিষ্ঠান হলেও শুরুটা খুব সহজ ছিল না। মাত্র ১৩ বছর বয়সেই ১৯৪২ সালে নিজ গ্রাম খুলনার ফুলতলার মধ্যডাঙ্গা ছেড়ে জীবিকার অন্বেষণে বেরিয়ে পড়েন শেখ আকিজ উদ্দিন। মাত্র ১৬ টাকা হাতে নিয়ে ট্রেনে চেপে বসেন দুরন্ত এ কিশোর। কলকাতায় পাইকারি বাজার থেকে কমলা লেবু কিনে হাওড়া ব্রিজে ফেরি করা শুরু করেন। কলকাতায় সুবিধা করতে না পেরে এক পরিচিত ব্যবসায়ীর সঙ্গে পাড়ি জমান পেশোয়ারে। অল্প দিনে পশতু ভাষা শিখে ফের অল্প পুঁজি নিয়ে শুরু করেন ফলের ব্যবসা। দুই বছর এ ব্যবসা করে লাভ হয় ১০ হাজার টাকা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ডামাডোলে মা-বাবার স্নেহের টানে ফিরে আসেন নিজ গ্রাম মধ্যডাঙ্গায়। এর পর নিজ যোগ্যতায় ব্যবসা করে গড়ে তোলেন দেশের অন্যতম শীর্ষ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আকিজ গ্রুপ।

Print
513 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About admin

Close