কেশবপুরে নিখোঁজ হওয়া মন্দিরের সেবায়েতের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

এক্সপ্রেস ডেস্ক: নিখোঁজের ১৩ দিন পর যশোরের কেশবপুর উপজেলার গৌরিঘোনায় প্রদীপকুমার মল্লিক (৪৭) নামে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার কাঁঠালতলা স্বামী ভাস্কর আনন্দ আশ্রম মন্দিরের সেবায়েত ছিলেন। প্রদীপ গৌরিঘোনা গ্রামের বাসুদেব মল্লিকের ছেলে। পুলিশের ধারণা, তিনি আত্মহত্যা করেছেন। শুক্রবার সকালে আমগাছ থেকে প্রদীপের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয় বলে জানান কেশবপুর থানার ইনসপেক্টর (তদন্ত) মাসুদুর রহমান। তিনি জানান, প্রদীপের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবে নিশ্চিত হওয়ার জন্য লাশ ময়নাতদন্তের জন্য যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আপাতত থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। প্রদীপের স্ত্রী শিখারানি মল্লিক জানান, গত ৪ জুন বিকেলে তার স্বামী বাড়ি থেকে ওষুধ কেনার জন্য গৌরীঘোনা বাজারে যান। এর পর থেকে তার কোনো সন্ধান মেলেনি। পরে প্রদীপের ভাই বিদ্যুৎকুমার মল্লিক ৭ জুন কেশবপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেন। যশোরের সহকারী পুলিশ সুপার (খ সার্কেল) বিল্লাল হোসেন জানান, ভোরে প্রদীপের মা তার ঘরে ছেলের শার্ট, টর্চলাইট ও মোবাইল ফোন দেখতে পান। তিনি ভেবেছিলেন ছেলে ফিরে এসেছে। কিন্তু কিছু সময় পর মা জানতে পারেন, বাড়ির কিছুটা দূরে একটি আমগাছে প্রদীপের দেহ ঝুলছে। ‘প্রদীপের শরীরের আঘাতের কোনো চিহ্ন না থাকায় ধরে নেওয়া হচ্ছে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। পুরোহিত-সেবক-পাদরিদের যেভাবে মারা হচ্ছে তার সঙ্গে এই ঘটনার কোনো মিল নেই,’ বলছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা বিল্লাল হোসেন। তিনি জানান, প্রদীপ মল্লিক কীর্তনীয় ছিলেন।

Print
1142 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close