নারী ও শিশু সুরক্ষাকারীর বিরুদ্ধেই স্ত্রী-সন্তান নির্যাতনের অভিযোগ

এক্সপ্রেস ডেস্ক: প্লান বাংলাদেশ নামে একটি বেসরকারি সংস্থার যশোরের রিজিওনাল প্রজেক্ট ম্যানেজার শাহরিয়ার মান্নানের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। তার স্ত্রী তাসনুবা আইরিন ও ছেলে পার্বন মঙ্গলবার বেলা ১১টায় প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আইরিন বলেন, ‘নারী ও শিশু সুরক্ষা ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে কাজ করেন স্বামী শাহরিয়ার মান্নান। প্লান বাংলাদেশের এই প্রজেক্টের খুলনা বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্বরত তিনি। সেই মান্নান প্রতিনিয়ত আমাকে নির্যাতন করে চলেছেন। মানসিকভাবে নির্যাতন করছেন ১১ বছরের সন্তান শাহরিয়ার পার্বনকে। নারী ও শিশুদের রক্ষক হয়ে তিনি নিজে ভক্ষক।’

আইরিন বলেন, ‘মান্নান ২০০৬ সালে বেকার হয়ে যান। এর পর তিনি আমার বাবার টাকায় এমবিএ করেছেন। চাকরি করছেন প্লান বাংলাদেশে। চাকরি পাওয়ার পর ২০১১ সালে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে যশোরে চলে আসেন। এর পরেও মান্নান বিভিন্ন সময় যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকেন। আমার সুখের কথা চিন্তা করে বাবা আব্দুল হাই সংসারের আসবাবপত্র কিনে দিয়েছেন। আমার বাবার টাকায় তিনি পবিত্র ওমরাহ করেছেন। তার চাহিদা অনুযায়ী আইফোন, ফ্রিজ, ল্যাপটপ কিনে দিয়েছেন আমার বাবা।’

‘কিন্তু দিন দিন তার চাহিদা বাড়তে থাকে। সবশেষ তিনি পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। না হলে সংসার ত্যাগ করতে বলে।’ আইরিন অভিযোগ করেন, ‘মান্নান আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। তিনি সংসারের কোনো খরচ দেন না। খোঁজ নিয়ে জানতে পারি, মান্নান তার ঢাকা অফিসের এক স্টাফের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েছেন। এ বিষয় জানতে চাইলে মান্নান আমার সাথে খারাপ আচরণ শুরু করে। গত ৫ মে তাকে হাতেনাতে ধরে ফেলি। এর পর থেকে তিনি আমাকে যশোর ছেড়ে চলে যাওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন। তার পরেও সব কিছু মেনে দিয়ে সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে সংসার আঁকড়ে থাকি।’

আইনরিন অভিযোগ করেন, ‘পাঁচ লাখ টাকা যৌতুক না দিলে মান্নান আমার সাথে আর সংসার করবেন না বলে জানিয়ে দেন। এতো টাকা আমার বাবার পক্ষে দেওয়া সম্ভব নয়। উপায়ন্তর না পেয়ে প্রতিকার চেয়ে গত ২০ জুন পারিবারিক আদালতে তার বিরুদ্ধে মামলা করেছি।’ আইরিন বলেন, ‘মান্নানের মতো নারী নির্যাতনকারীরা কোনো দিন নারী ও শিশুদের সুরক্ষা দিতে পারে না। আমি তার মুখোশ খুলে দিতে চাই।’ সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন আইরিনের বাবা আব্দুল হাই, ছেলে শাহরিয়ার পর্বন ও তার আইনজীবী শাহরিয়ার বাবু।

জানতে চাইলে শাহরিয়ার মান্নান বলেন, ‘আমার সঙ্গে স্ত্রীর ডিভোর্স হয়ে গেছে। এখন তিনি যেসব অভিযোগ করছেন, তা ডিভোর্সের পর। এসব অভিযোগ মিথ্যা।’ তিনি বলেন, ‘বিষয়টি বারের সাবেক সেক্রেটারি আবদুল গফুরের মাধ্যমে মীমাংসার উদ্যোগ নেওয়া হয়। কিন্তু শেষ মুহূর্তে আইরিন বসতে অস্বীকৃতি জানান।’

Print
1014 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close