অস্তিত্ব সংকটে চারুপীঠ যশোর

বাংলা বর্ষবরণে মঙ্গল শোভাযাত্রার রূপকার আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন যশোরের ঐতিহ্যবাহী চারুকলা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চারুপীঠ আর্ট রিসার্চ ইন্সটিটিউটের জায়গার পরিধি সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। যশোর পৌরসভা কর্তৃপক্ষ নতুন করে জমি বন্দোবস্ত না দেয়ায় গবেষণাধর্মী এ প্রতিষ্ঠানটির অস্তিত্ব সংকট দেখা দিয়েছে। এতে সাড়ে ৫ শতক জমির মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে হচ্ছে আন্তর্জাতিক মানের এ প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম। অন্যদিকে ত্রিশ বছর ধরে দখলে থাকা জমির সীমানা প্রাচীর পৌর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ভেঙে উন্মুক্ত ও অরক্ষিত করে দেয়ায় অস্তিত্ব সংকটের  উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন চারুপীঠের কর্মকর্তারা। তবে পৌর কর্তৃপক্ষ বলছে, নতুন করে চারুপীঠকে জায়গা বরাদ্দ দেয়া হবে না। উন্মুক্ত ওই জায়গায় নতুন সংগঠনকে বরাদ্দ দেয়া হবে। একই সঙ্গে নতুন করে রাস্তা তৈরির পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।
এদিকে বুধবার দুপুরে চারুপীঠ সুরক্ষায় করণীয় বিষয়ে যশোরের বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাদের নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করেন চারুপীঠ যশোরের সভাপতি হারুণ অর রশিদ। উপস্থিত ছিলেন- সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান শহীদ, সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার আলম খান দুলু, সচেতন নাগরিক কমিটি যশোরের সদস্য অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন টুলু, দৈনিক স্পন্দনের বার্তা সম্পাদক শিকদার খালিদ, জেইউজের সাবেক সভাপতি সাজ্জাদ গণি খান রিমন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) নির্বাহী কমিটির সদস্য প্রণব দাস, চারুপীঠ যশোরের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশিদ, কোষাধ্যক্ষ সালমা জাসান ইভা, সদস্য আঞ্জুানারা প্রমুখ।
চারুপীঠের সভাপতি হারুণ অর রশিদ জানান, শিল্পী এসএস সুলতানের অনুপ্রেরণায় যশোরে চারুকলা প্রতিষ্ঠান চারুপীঠ স্থাপন করা হয়। চারুপীঠ স্থায়ী রূপদানের জন্য ১৯৮৮ সালে যশোর পৌরসভার তৎকালিন চেয়ারম্যান খালেদুর রহমান টিটো ও কমিশনাররা স্ব-প্রণোদিত হয়ে পৌরসভার জলকল ভবনে (বর্তমান পৌরসভা অফিস) চারপীঠ পরিচালনার জন্য জায়গা দেন। ১৯৯০ সালে যশোরের জেলা প্রশাসক রফিউদ্দিন ভূঁইয়া আন্তরিক হয়ে তৎকালীন পৌর মেয়র ইসাহক ও কমিশনারদের ঐকমত্যে পৌর উদ্যান সংলগ্ন ছেড়ে যাওয়া যুব উন্নয়ন ভবন ও সংলগ্ন জমিতে চারুপীঠের প্রধান কার্যালয়ের জন্য স্থায়ী বন্দোবস্তের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।
চারুপীঠের আবেদনে এলজিআরডি মন্ত্রণালয় ৫৩ শতক জমিদানের অনুমোদন করে। চারুপীঠের শিল্পীরা কঠোর পরিশ্রম ও অর্থ ব্যয়ের মাধ্যমে চারপীঠ অঙ্গনকে শৈল্পিক নৈসর্গিক রূপদান করেছেন। যশোর পৌরসভা কর্তৃপক্ষ ৫৩ শতকের পরিবর্তে পুরনো ভবনটির সাড়ে ৫ শতক জমি চারুপীঠের নামে দলিল করেছে। চারুপীঠ আর্ট রিসার্চ ইন্সটিটিটের পূর্ণাঙ্গ রুপদানে পরিকল্পিত নতুন ভবনটির জন্য বর্ধিত পরিসরে জমির প্রয়োজন। তিনি আরও বলেন, পৌর কর্তৃপক্ষ সীমানা প্রাচীর ভেঙে উন্মুক্ত করে দিয়েছে। সেখানে পৌরসভার পরিত্যক্ত গাড়ি রাখা হয়েছে। এতে একদিকে যেমন অরক্ষিত হয়ে পড়েছে চারুপীঠ প্রাঙ্গণ, তেমনি সৌন্দর্য হারিয়েছে। অবিলম্বে চারুপীঠ সুরক্ষায় পৌর কর্তৃপক্ষের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানান তিনি।
এ প্রসঙ্গে যশোর পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু বলেন, চারুপীঠের জন্য নতুন করে জায়গা বরাদ্দের সুযোগ নেই। বরাদ্দের সাড়ে ৫ শতক জায়গাই তারা ঠিকমত ব্যবহার করে না। পুরনো প্রাচীর ভেঙে উন্মুক্ত করা হয়েছে। সিভিল সার্জনের অফিসের পাশ দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করা হবে। চারুপীঠের সামনের প্রায় ৩০ ফুট জায়গা ব্যবহার হয় না। অনেক সাংস্কৃতিক সংগঠন আবেদন করেছে। ওই জায়গা সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর মধ্যে বরাদ্দ দেয়া হবে।
Print
1084 মোট পাঠক সংখ্যা 1 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close