আর কত বয়স হলে বয়স্ক ভাতা পাবে মনিরামপুরের সুধারানী

যশোরের মনিরামপুর উপজেলার হানুয়ার ( কোমলপুর) গ্রমের সুধারাণী হালদার ৮৫ বছর বয়সেও বয়স্ক বা বিধবা ভাতা থেকে বঞ্চিত। আর কত বয়স হলে এই বৃদ্ধা সুধারাণী হালদার ভাতা পাবেন তা আজো অজানা। বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে শরীরে বাসা বেধেছে নানান রোগ-ব্যাধি। কানে শুনতে পান না। বয়সের ভারে শরীর একেবারে নুয়ে পড়েছে। কিন্তু জীবনের শেষ প্রান্তে এসে দাঁড়ালেও তার ভাগ্যে জোটেনি সরকারি কোন ভাতা। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার ৯নং ঝাঁপা ইউনিয়নের ৫নং ওর্য়াডের হানুয়ার কোমলপুর গ্রামের বাসিন্ধা মৃতঃ বদ্ধিনাথ হালদারের স্ত্রী সুধারানী হালদার । তার জন্ম ১৯৩২ সালের এপ্রিল মাসে। ১ ছেলে ও ২ মেয়ে আছে, স্বামী মারা গেছেন প্রায় ১২ বছর আগে। ছেলের সাংসারিক অবস্থাও ভালো না। তিনি বর্তমানে ছেলের পরিবারের সঙ্গে আছেন। তার ছেলের ১ ছেলে আছে। সুধারাণীর ছেলে মাছ কিক্রয় করে কোন মতে সংসার চালান। তার ছেলে কিনারাম হালদার জানান, মায়ের এই বয়সে যেমন যত্ন প্রয়োজন তেমনটি আমি করতে পারি না। আমি দিন আনি দিন খাই। অনেক চেষ্টা করেছি আমার মায়ের ভাতার বিষয়ে। শুনেছি প্রধান শেখ হাসিনা বলেছেন দেশে কোন গরিব বিধবা বা বয়স্ক লোক থাকলে তাদের ভাতা দিতে হবে কিন্তু স্থানীয় চেয়ারম্যান কিংবা মেম্বার কেউ এগিয়ে আসেনি। আমার মা যদি বয়স্ক কিংবা বিধবা ভাতা পেত তাহলে তার আরো বেশি বেশি যত্ন করা আমার পক্ষে সম্ভব হতো। অথচ আমার চেয়ে অনেক ভালো ও সচ্ছল মানুষরা বয়স্ক/বিধবা ভাতার সুবিধা ভোগ করে আসছে দীর্ঘদিন যাবত।

Print
722 মোট পাঠক সংখ্যা 3 আজকের পাঠক সংখ্যা

About Jessore Express

Close